ফিরোজ আলম
বাংলাদেশের অর্থনীতি একটি মধ্য আয়ের উন্নয়নশীল এবং স্থিতিশীল অর্থনীতি। অর্থনীতিতে বাংলাদেশেরন বর্তমান অবস্থান ৪১ তম এবং দ্রুত বর্ধনশীল হিসেবে পঞ্চম। ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে ২৯ তম যা দক্ষিন এশিয়ায় ২য়। বাংলাদেশ গত ১০ বছর যাবত গড়ে ৬.৩ শতাংশ হার ধরে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে এবং বর্তমানে বিশ্বের ৭ম দ্রুত উন্নয়নশীল অর্থনীতি বাংলাদেশের।
বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি আসে প্রধানত ৫ টি খাত যথাক্রমে উৎপাদন, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসা, পরিবহন, নির্মাণ এবং কৃষি থেকে। গত অর্থবছরে (২০১৮-১৯) জিডিপিতে ৬৭ শতাংশ (সাড়ে সাত লাখ কোটি টাকা) অবদান রেখেছে এই খাতগুলি । বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এর তথ্যানুসারে গত অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮.১৫ %, স্থিরমূল্যে যা ১১,০৫,৭৯৩ কোটি টাকা।
কিন্তু বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রতিটি খাত করোনা ভাইরাসে মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়েছে। করোনার কারণে লাখ লাখ শ্রমিক বেকার। অধিকাংশ কলকারখানা পূর্ণ উৎপাদনে যেতে পারছে না। রপ্তানি আয় কমে যাচ্ছে।
বিশ্বব্যাংক বলছে, আগামী অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ১ দশমিক ৬ শতাংশ হতে পারে, ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট বলছে ১ দশমিক ৬ শতাংশ। বাংলাদেশ সরকারের লক্ষ্য ৮ দশমিক ২ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্র, পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলো, রাশিয়ার প্রবৃদ্ধি মাইনাস হতে পারে। চীনের প্রবৃদ্ধি ১ শতাংশ এবং ভারতের প্রবৃদ্ধি নেতিবাচক, মাইনাস ৩ দশমিক ২ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।
বাংলাদেশের অর্থনীতিকে প্রধানত – কৃষি, সেবা এবং শিল্প এই তিন খাতে ভাগ করা হয়।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসেব অনুযায়ী, দেশের অর্থনীতিতে এখন সেবা খাতের অবদান প্রায় ৫০ শতাংশ। এছাড়া শিল্পখাত ৩৫ শতাংশ এবং কৃষির অবদান এখন ১৪ শতাংশের মতো।
বাংলাদেশের অর্থনীতির একটি বড় শক্তি হচ্ছে ভোক্তা ব্যয়। অর্থাৎ বিভিন্ন খাতে মানুষ যে টাকা খরচ করে সেটার উপর নির্ভর করে শিল্প প্রতিষ্ঠানও টিকে থাকবে।
ভোক্তা ব্যয় আমাদের জিডিপির ৬৯%। এই ব্যয় যদি করা সম্ভব না হয়, এই ব্যয়ের উপর নির্ভরশীল যারা আছেন, ছোট উৎপাদক থেকে শুরু করে শিল্পখাতে এবং সেবা খাতে সবাই বিক্রির সংকটে পড়বে।করোনা সেই সংকট টাই বাড়িয়ে দিয়েছে।মানুষ হোটেল রেস্তোরাঁয় গিয়ে খাওয়া-দাওয়া কমিয়ে দিয়েছে , রিক্সায় চড়ে ঘুরে বেড়ানো কমিয়ে দিয়েছে ,শপিং এবং প্রসাধনী ক্রয় বন্ধ করে দিয়েছে,নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ছাড়া মানুষ কিন্তু এখন আর ব্যয় করছেনা।
ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পের বেহাল দশা বর্তমানে ।বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা অনুযায়ী, দেশে প্রায় ৮০ লক্ষ শিল্প উদ্যোগ আছে। এর মধ্যে ৯৮ শতাংশই হচ্ছে ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্প।বাকি দুই শতাংশ শিল্প হচ্ছে গার্মেন্টস এবং ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে।গার্মেন্টস কারখানা সীমিত আকারে চালু থাকলে ও অনেক শ্রমিককে বেতন দিচ্ছেন না,অনেক অর্ধেক,অনেকে আবার বেতন না দিয়ে গার্মেন্টস বন্ধই কে দিচ্ছেন।
বর্তমানে ‘বিদেশি আয়’ (রেমিট্যান্স) এবং ‘তৈরী পোষাক শিল্প’ (গার্মেন্টস) বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি। ২০১৮ সালের হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী বেশি রেমিট্যান্স আসা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৯ম।
২০১৯ সালে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১ লাখ ৫৫ হাজার ৭৬৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা (১,৮৩৩ কোটি মার্কিন ডলার) যা ২০১৮ সালের তুলনায় ২০ শতাংশ বেশী। ২০১৮, ২০১৭, ২০১৬ ও ২০১৫ সালে রেমিট্যান্স এসেছে যথাক্রমে ১,৫৫৩, ১,৩৫৩, ১,৩৬১ ও ১,৫৩১ কোটি মার্কিন ডলার।বাংলাদেশে প্রতিবছর ইদের পূর্বে বেশী পরিমানে রেমিট্যান্স আসে এবং ২০২০ সাল থেকে সরকার প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স এর উপর ২ শতাংশ হারে (১০০ টাকায় ২ টাকা) প্রণোদনা দিচ্ছে। কিন্তু বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির ক্রমান্বয়ে অবনতি হতে থাকায় প্রবাসীদের আয় বর্তমানে বন্ধের পথে।সারা বিশ্ব করোনা আক্রান্ত হওয়ায় আমাদের এক কোটি প্রবাসী হুমকির সম্মুখীন। ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশে আমাদের প্রবাসীর মৃত্যু? বিদেশে কর্মচ্যুত হয়েছে প্রায় সকল প্রবাসী। সেখানে প্রবাসীদের ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ। সকল প্রকার আয় বন্ধ। প্রতিদিন যে খানে হাজার হাজার বাংলাদেশী বিদেশ যেতেন, সেখানে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ।ফলে প্রবাসীদের রেমিটেন্স পাঠানো বন্ধ হলে বাংলাদেশের অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়তে পারে।
বাংলাদেশের রপ্তানিতে চামড়া,চা,পাট শিল্প বহু লাভজনক খাত। কিন্তু আজ করোনা আক্রমণের কারণে আমদানী, রপ্তানি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ। সকল শিল্প কারখানা বন্ধ রয়েছে। রপ্তানি আদেশ না থাকায় ঝুকিতে পড়ছে উক্ত খাত সমূহ।
দেশী বিদেশী সকল যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার ফলে হোটেল, রেষ্টুরেন্ট, বিনোদনসহ সকল খাত সমূহে ব্যবসা বন্ধ। ফলে ট্যুরিজম, সেবা খাতের
উদ্যোক্তাগণ এবং শ্রমিকরা কর্মহীন। আয় বন্ধ। ব্যয় কিন্তু চালু রয়েছে। দেশে সরকারি হাসপাতালসমূহের সেবা মান অথর্ব এবং আগে থেকেই সমালোচিত।সাথে সাথে বেসরকারি অনেক হাসপাতাল, ক্লিনিক ব্যবসা ও ধস নেমেছে। করোনা ভয়ে হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহে ডাক্তারগণ ঠিকমত দায়িত্বপালন করতে পারছে না। নানা ভয়ে সাধারণ রোগীরাও চিকিৎসকের সেবা নিতে আসছে না।
ব্যবসাবড় বড় শহরে হোটেল, রেস্টুরেন্ট বন্ধ থাকার কারণে কৃষি পণ্যের বিক্রি বন্ধ হয়ে পড়েছে। পোল্ট্রি খামারিরা,দুধ, মাছ, সবজি উৎপাদনকারীগণ করোনা ভাইরাসের জন্য সরাসরি ক্ষতি মুখে পড়েছে।
বাংলাদেশের প্রত্যাশা ছিল ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৮.২ শতাংশ।
বিশ্ব ব্যাংক বলছে, এখন একই মেয়াদে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হবে দুই থেকে তিন শতাংশ। অবস্থা আরো খারাপ হবে ২০২১ সালে।অন্যদিকে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ২০২০ অর্থবছরে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ এবং ২০২১ অর্থবছরে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ আশা করা হচ্ছে বলে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বৃহস্পতিবার তাদের এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২০ সাপ্লিমেন্টের হালনাগাদ প্রতিবেদনে জানিয়েছে।
অর্থনৈতিক পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য বাংলাদেশ সরকার এরই মধ্যে প্রায় ৯২,০০০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।
অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এসব প্রণোদনা তখনই কাজে লাগবে যখন বাজার ব্যবস্থা স্বাভাবিকভাবে চলবে। সাথে সাথে পাঁচটি খাতে সরকার কে মনোযোগী হতে হবে
ক•নির্মান খাত:
নির্মাণ খাতে ভর করেই ঘুরে দাঁড়াতে পারে বাংলাদেশের অর্থনীতি।
তাঁরা বলছেন, শ্রমঘন এই খাতে ভর করেই ঘুরে দাঁড়াতে পারে অর্থনীতি। নির্মাণশিল্প খাতে গতি আনা গেলে বাড়বে কর্মসংস্থান। জীবিকা নির্বাহে মানুষ কাজ পাবে। স্থানীয় অর্থনীতিতে চাঞ্চল্য ফিরবে।নির্মাণের সঙ্গে সংযুক্ত ৪৫৬ শিল্পেও গতি আসবে। নির্মাণ খাতে জড়িত ৩৫ লাখ মানুষও কাজের দিশা পাবে। নির্মাণ খাত গতিশীল হলে বাড়বে সরকারের রাজস্ব।এ জন্য অর্থ প্রয়োজন আর অর্থের জন্য উন্নয়ন অংশীদার বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, এআইআইবির মতো বড় বড় বৈশ্বিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে কাজে লাগাতে হবে।’
সরকারের রাজস্ব আহরণের অন্যতম একটি খাত নির্মাণ। এই খাতকে সরকারের রাজস্ব আয়ের নিশ্চিত খাত ধরা হয়। কোনো নির্মাণকাজ শুরুর আগে সরকারের রাজস্ব বিভাগ ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর ও ৭ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর পায়।
নির্মান খাত মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) বড় ভূমিকা রাখছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে চলতি মূল্যে এই খাতটি দেশের অর্থনীতিতে এক লাখ ৯৬ হাজার ৪০৩ কোটি টাকার মূল্য সংযোজন করেছে।
বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ মনে করেন তৈরি পোশাকের মতো এই খাতকে অগ্রাধিকার দেওয়া গেলে দেশের অর্থনীতি দ্রুত পুনরুদ্ধার করা সম্ভব।
খ.তৈরি পোশাক খাত: পোশাক শিল্প তৈরি পোশাক বা আরএমজি (Readymade Garments) নামে সমধিক পরিচিত। প্রায় ৩০টি দেশে পোশাক রপ্তানি করে, তবে মোট রপ্তানির ৯০%-এর অধিক যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউ বাজারে বিক্রি হয়। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে মোট রপ্তানির ৪০% এবং ইইউতে ৫০% রপ্তানি হয়। এই দুই বাজারে বাংলাদেশকে চীন, ভারত, শ্রীলংকা, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, তুরস্ক, মেক্সিকো, পূর্ব ইউরোপের দেশ, ল্যাটিন আমেরিকা ও আফ্রিকার সাথে প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে। মেক্সিকো, বেশ কিছু ল্যাটিন আমেরিকার দেশ, আফ্রিকা এবং পূর্ব ইউরোপের দেশ যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুযোগ পেলেও বাংলাদেশ পায় নি। এই বৈষম্যের কারণে বাংলাদেশকে তীব্র প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে।
বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের সিংহভাগ তৈরি পোশাক খাত হতে অর্জিত হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ খাতে মোট রপ্তানি আয় হয়েছে ৩৪.১৩বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থবছরের তুলনায় ১১.৪৯% বেশি। তন্মধ্যে ওভেন গার্মেন্টস থেকে রপ্তানি আয় হয়েছে ১৭.২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থবছরের রপ্তানি আয়ের তুলনায় ১১.৭৯% বেশি এবং নীট গার্মেন্টস থেকে আয় হয়েছে ১৬.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত অর্থ বছরের রপ্তানি আয়ের ১১.১৯% বেশি। তাই তৈরি পোশাক ই হতে পারে বাংলাদেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের অন্যতম চালিকা শক্তি।
গ•রেমিটেন্স :বর্তমানে জিডিপিতে রেমিটেন্সের অবদান ৫ শতাংশের ঘরে । অথচ ২০০৮-০৯ থেকে ২০১২-১৩ অর্থবছর পর্যন্ত এটির অবদান ৯ শতাংশের বেশি ছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালানাগাদ প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১২-১৩ অর্থবছরের পর থেকে জিডিপিতে রেমিট্যান্সের অবদান কমতে শুরু করেছে। ওই অর্থবছরে জিডিপিতে রেমিট্যান্সের অবদান ছিল ৯.৬৪ শতাংশ। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে তা কমে ৮.২১ শতাংশ; ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৭.৮৭ শতাংশ, ২০১৫-১৬ অর্থছরে ৬.৭৬ শতাংশ ও ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫.১১ শতাংশে নেমে আসে। তবে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে অবদান কিছুটা বেড়ে ৫.৪৭ শতাংশে উন্নীত হলেও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আবার অবনতি হয়ে ৫.৪৩ শতাংশে নেমেছে।তাই রেমিটেন্সে মনোযোগ দিতে হবে।পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়কে বিদেশী শ্রমিকদের স্বার্থ এবং বিদেশে কাজ প্রাপ্তি,নিরাপত্তা, এবং আইনগত সহায়তা নিশ্চিত করা অতীব জরুরি।
ঘ•উৎপাদন খাত:
এই খাতে দেশের ছোট-বড় কলকারখানাগুলো অবদান রাখে। কলকারখানা থেকে যত পণ্য উৎপাদন হয়ে মূল্য সংযোজন হয়, তা জিডিপিতে যুক্ত হয়। গত অর্থবছরে উৎপাদন খাতের অবদান ছিল জিডিপির ২৪ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। অর্থের হিসাবে স্থিরমূল্যে এই খাতে ২ লাখ ৫৬ হাজার ১১৭ কোটি টাকার মূল্য সংযোজন হয়েছে। এক বছরের ব্যবধানে এই খাতে সর্বোচ্চ ১৪ দশমিক ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। উৎপাদন খাতই এখন জিডিপি প্রবৃদ্ধির প্রধান হাতিয়ার।তাই উৎপাদন খাতে প্রয়োজন সরঞ্জামাদি এবং আর্থিক প্রনোদনা নিশ্চিত করে এ খাতকে শক্তিশালী করতে হবে।
ঙ•খুচরা ও পাইকারি ব্যবসা
সারা দেশে বছরজুড়ে খুচরা ও পাইকারি ব্যবসা হয়। গলির মুদিদোকান থেকে শুরু করে দেশের সর্বত্রে পাইকারি বিক্রি জিডিপিতে যুক্ত হয়। ২০১৯- ২০ অর্থবছরে জিডিপিতে এই খাতের অবদান ছিল দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৩ দশমিক ৯২ শতাংশ, যার পরিমাণে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৫৮ কোটি টাকা। এটি আগেরবারের চেয়ে ১১ হাজার কোটি টাকার বেশি।
চ•পরিবহন খাত:
পরিবহন খাত বলতে দেশজুড়ে যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী বাস-ট্রাক, ট্রেন, জাহাজ-নৌকা চলাচল করাকে বোঝায়। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে এই খাত থেকে ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৫ কোটি টাকার মূল্য সংযোজন হয়েছে, যা আগেরবারের চেয়ে ৮ হাজার কোটি টাকা বেশি। পরিবহন খাতে যত মূল্য সংযোজন হয়, এর মধ্যে প্রায় ৬৫ শতাংশই আসে সড়ক পরিবহন থেকে। এ খাতে গতবার এসেছে সাড়ে ৭৪ হাজার কোটি টাকা। এ ছাড়া নৌপরিবহন থেকে ৭ হাজার কোটি টাকা ও আকাশপথের পরিবহন থেকে ১ হাজার কোটি টাকা এসেছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং পরিবহন খাতের আনুষঙ্গিক কার্যক্রমও পরিবহন খাতের সঙ্গে যুক্ত। ডাক ও টেলিযোগাযোগ খাত থেকে গতবার ২৭ হাজার কোটি টাকার বেশি মূল্য সংযোজন হয়েছে। তাই পরিবহন সমস্যা দ্রুত সমাধান,পরিবহন নিয়ে যারা সিন্ডিকেট তৈরি করে সমস্যা তৈরি করে সেটি অবিলম্বে সমাধান করা জরুরি।
ছ•কৃষি ও বনায়ন
কৃষি ও বনায়ন খাত থেকে জিডিপির ১০ শতাংশের বেশি অর্থ আসে। টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ১ লাখ ৭ হাজার কোটি টাকা। শুধু ফসল ফলিয়ে কৃষকেরা জিডিপিতে ৭৫ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অবদান রেখেছেন। হাঁস-মুরগি, গরুসহ গবাদিপশু পালনে আসে সাড়ে ১৫ হাজার কোটি টাকা। বনায়ন করে গত অর্থবছরে অর্থনীতিতে যুক্ত হয়েছে ১৭ হাজার কোটি টাকার বেশি।
ফিরোজ আলম,বিভাগীয় প্রধান(অনার্স শাখা),আয়েশা (রা:) মহিলা অনার্স কামিল মাদ্রাসা, সদর,লক্ষীপুর। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি এবং সাধারন সম্পাদক,লক্ষীপুর জেলা শাখা।বিএমজিটিএ।
Print Friendly, PDF & Email