স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু’র গাড়িবহরে পুলিশের বাঁধা, আহত-২০

শেয়ার

লক্ষ্মীপুর:
লক্ষ্মীপুরের রামগতি ও কমলনগরে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি ও লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের সম্ভাব্য সংসদ সদস্য প্রার্থী সফিউল বারী বাবু’র গাড়ি বহরে পুলিশে বাঁধা দেয়। এসময় নেতাকর্মীরা মিছিল করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে অনন্ত ২০ নেতাকর্মী আহত হয়। ঈদের দিন (সোমবার) সন্ধ্যায় লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতিতে এসব ঘটনা ঘটে।
দলীয় সুত্রে জানা গেছে, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু ঈদের দিন সন্ধ্যায় নেতাকর্মী ও নিজ এলাকার লোকজনের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে ্রামগতি নিজ গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। এখবরে দলীয় নেতাকর্মীরা মটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের বহর নিয়ে বাবুকে লক্ষ্মীপুর থেকে এগিয়ে নিয়ে আসে। পথে কমলনগরের তোরাবগঞ্জ বাজার পৌছলে পুলিশ গাড়ি বহরে বাঁধা দেয়। এসময় বাবুকে বহনকারী  মাইক্রোবাসসহ ২টি গাড়ি যেতে দিলেও বহরের থাকা মটরসাইকেলসহ বাকী সবগাড়ি যেতে দেয়নি। এসময় সফিউল বারী বাবু নেতাকর্মীদের সাথে দেখা করার জন্য গাড়ি থেকে নামতে চাইলে পুলিশ বাঁধা দেয়। তাকে গাড়ি থেকে নামতে না দেওয়ায় তাৎক্ষনিক নেতাকর্মীরা মিছিল করে। তখন মিছিলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। একইভাবে লরেন্স বাজারেও পুলিশ বাঁধা দেয়। লরেন্স থেকে হাজিরহাট বাজারে পৌছলে নেতাকর্মীরা বাবুকে নিয়ে মিছিল করে উপজেলার দলীয় কার্যালয়ে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করে। পরে কমলনগর থেকে রামগতি যাওয়ার পথে রামগতি থানার সামনে পৌছলে বাবুর গাড়ি বহরে ফের পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এসব ঘটনায় অনন্ত ২০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গাড়িবহরে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আনু মোহাম্মদ শামিম আজাদ, সাবেক রামগতি উপজেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক আবি আবদুল্লা, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মনির চৌধুরী শামিম, লক্ষ্মীপুর জেলার স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মাইন উদ্দিন হামিম, রামগতি উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবু সায়েম মোহাম্মদ শাহিন, সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর ও কেন্দ্রিয় ছাত্রদলের সদস্য নিয়াজ মাহমুদ।
স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু জানান, ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করার জন্য এলাকায় (রামগতি-কমলনগর) পৌছলে নেতাকর্মীরা আমার সাথে দেখা করতে আসে তবে এসময় পুলিশের ভুমিকা ছিল ন্যাকারজনক। তখন পুলিশ নেতাকর্মীদেরকে বাঁধা দিয়েছে, আহত করেছে, আটক করেছে, মারধর করে তাদের মোটরসাইকেল নিয়ে গেছে। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। এখানে কোন রাজনৈতিক সভা সমাবেশ ছিলনা, বিশৃংখলা হওয়ার আশংকা ছিলনা, এখানে কোন প্রতিপক্ষ নেই। ফ্যাসিবাদী সরকারে পক্ষে এসব সম্ভব।
কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকুল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, বিশৃংখলা ও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সর্তক ছিল। সফিউল বারী বাবুকে কোন বাঁধা দেওয় হয়নি, সে নির্বিঘেœ রামগতি বাড়ি পৌছেছে।
প্রসঙ্গত, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনে ২০ দলীয় জোটের সংসদ  সদস্য প্রার্থী। ঈদের দিন সন্ধ্যায় তিনি রামগতির নিজ বাড়িতে আসেন। ঈদের পরে মঙ্গল ও বুধবার রামগতি-কমলনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নেতাকর্মী ও সাধারন জনগনের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.