মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৯, ২০২১



গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত

স্বজনদের বাধায় নিজ এলাকায় দাফন হলো না শিক্ষকের

চট্টগ্রাম:

জ্বর শ্বাসকষ্ট নিয়ে মৃত্যু হওয়া এক কলেজ শিক্ষককে নিজ এলাকায় দাফনে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমনকি মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেলে আত্মীয় স্বজনরা পালিয়ে যান। পরে বাধ্য হয়ে অন্যত্র দাফন কাজ সম্পন্ন করতে হয় পরিবারকে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুন) দিবাগত রাতে রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়েনের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে এমনই ঘটনা ঘটেছে।

জ্বর-শ্বাসকষ্ট নিয়ে মৃত্যু হওয়া অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম রাঙ্গুনিয়ার সৈয়দা সেলিমা কাদের চৌধুরী ডিগ্রি কলেজে জীববিজ্ঞান বিভাগে অধ্যাপনা করতেন। কর্মসুত্রে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার মরিয়মনগর ইউনিয়নের পূর্ব সৈয়দবাড়ি গ্রামে পরিবার নিয়ে ভাড়ায় থাকতেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতে জ্বর শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন এবং সেখানেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মরদেহ দাফনের জন্য নিজ বাড়ি রাউজানে আনা হলে নিজের আত্মীয় স্বজনরা মরদেহ অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামাতে এবং দাফন কাফন সম্পন্ন করতে বাধা দেয়। পরে পরিবারের স্বজনরা মরদেহ নিয়ে গিয়ে রাঙ্গুনিয়ায় দাফন কাজ সম্পন্ন করে।

মৃত অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলামের ছেলে মো. আসিকুল ইসলাম বলেন, আমার চাচাতো ও জেঠাতো ভাইরা দাফন করতে বাধা দেয়। আমার বাবার মরদেহ অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামাতে পর্যন্ত দেয়নি।

তবে এলাকার মুরুব্বি হাজী মো. আব্দুর রব্বান  বলেন, তিনি মারা গেছেন আমরা জানতাম না। যখন জানতে পারলাম তখনই এলাকার সবাই একসাথে হয়ে কবর খোঁড়া থেকে শুরু করে সব কাজ করেছি। এরই মধ্যে শুনতে পেলাম তারা চলে যাচ্ছেন। আমরা তাদেরকে থামানোর অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু পারি নি। তবে জানতে পারলাম মরদেহ আসার পর তাদের পরিবারের আত্মীয় স্বজনরা দরজা বন্ধ করে রেখে ছিল।

নোয়াপাড়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সুশীল দাশ বলেন, আমি জানতে পেরেছি মরদেহ বাড়িতে আনার পর তার স্বজনরা বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে ওই শিক্ষকের পরিবার সেখান থেকে নিয়ে গিয়ে রাঙ্গুনিয়ায় দাফন করেন।

এ ব্যাপারে রাউজানের সংসদ সদস্য ফজলে করিম চৌধুরীর জ্যেষ্ঠ সন্তান ও তরুণ রাজনীতিবিদ ফারাজ করিম চৌধুরী বলেন, গতকাল রাতে রাউজানে যে ঘটনা ঘটেছে তার জন্য দুঃখ প্রকাশ করার মত ভাষা নেই। পরিবার পরিজন কতটা মর্মাহত হলে তারা নিজ মাটিতে কবর না নিয়ে অন্য জায়গায় চলে যায়। আমাকে মৃতের ছেলে জানিয়েছে তার আপন চাচাতো-জেঠাতো ভাইরা এবং পুরো গ্রামবাসি জড়িত। কিন্তু আমাকে কোন নাম দেয়ি নি। তাকে আমি অনুরোধ করেছি। কয়েকজনের নাম দিলে আমরা অন্তত পক্ষে সেখানে গিয়ে তা যাচাই করতে পারবো।

এ বিষয়ে রাঙ্গুনিয়া থানার উপ পরিদর্শক ইসমাঈল হোসেন জুয়েল বলেন, ‘রাউজানে শিক্ষকের নিজ গ্রাম থেকে মরদেহ নিয়ে আসা হলে রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ দাফনের দায়িত্ব নেয়। পরে এলাকার তরুণ এবং গাউছিয়া কমিটির সাহায্যে দাফন কাজ সম্পন্ন করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ

লক্ষ্মীপুরের অবরোধের ১৭ দিনেও চাল পায়নি জেলেরা

আমজাদ হোসেন আমু : ২২ দিন মেঘনা নদীতে সকল ধরণের মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা জারি করেন মৎস্য অফিস। ইলিশের প্রজনন রক্ষায় মা ইলিশ সংরক্ষণে এমন নিষেধাজ্ঞা...

জয় নিতে মরিয়া বাংলাদেশ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে গেছে বাংলাদেশ। এতে প্রতিযোগিতার মূলপর্বে...

পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, আসামি আরিফ গ্রেফতার

নওগাঁর মান্দায় এক পঙ্গু পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে ধর্ষণের মামলার আসামি আরিফ হোসেন জয়কে (৩০)...

শুধু বিনোদনই নয় দায়িত্বও রয়েছে সিনেমায়

'এ দেশ তোমার আমার' নিয়ে প্রত্যাশা কেমন। এ বিষয়ে সবার আগে যে কথাটি বলতে চাই,...

বাংলাদেশে সেরা ইস্ট ওয়েস্ট ভার্সিটির

বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণর্ যাঙ্কিং 'এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স-২০২১'-এ বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ইস্ট...

রবিউল আউয়াল মাসের আমাদের শিক্ষা

বছর ঘুরে আবার আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছে রবিউল আউয়াল মাস। ইসলামে এটি গুরুত্বপূর্ণ ও...