সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিয়ে যা বললেন নতুন কুদস প্রধান

মধ্যপ্রাচ্য থেকে মার্কিন সেনাদের বিতাড়িত করাই সোলাইমানিকে হত্যার একমাত্র প্রতিশোধ বলে মন্তব্য করেছেন কুদস ফোর্সের নতুন প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইসমাইল কিয়ানি। স্থানীয় একটি গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে সোমবার জেনারেল ইসমাইল কিয়ানি এমন দাবি করেন।

জেনারেল ইসমাইল কিয়ানি বলেন, সোলাইমানির রেখে যাওয়া পথে আমরা একই শক্তিতে এগিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করছি। তাকে হত্যার একমাত্র ক্ষতিপূরণ হতে পারে মধ্যপ্রাচ্য থেকে মার্কিন সেনাদের বিতাড়িত করা। এর আগে গত শুক্রবার ভোরে মার্কিন হামলায় সোলাইমানি নিহত হওয়ার পরে কিয়ানিকে তার স্থলাভিষিক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।
এদিকে, সোলাইমানির জানাজার নামাজে প্রায় ৭০ লাখ মানুষ উপস্থিত হয়েছিলেন। এ খবর দিয়েছে ইরানের ইসলামি প্রচার বিষয়ক সমন্বয় পরিষদের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নুসরাতুল্লাহ লুতফি। তিনি সোমবার রাতে সাংবাদিকদের জানান, শহীদদের প্রতি অসামান্য শ্রদ্ধা প্রদর্শনকারী ইরানি জনগণ হাজি কাসেম সোলাইমানিকে কতটা ভালোবাসে তার কিছুটা প্রমাণিত হয়েছে তার জানাজার নামাজে।

গত শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) ভোররাতে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে বিমান হামলা চালিয়ে জেনারেল সোলাইমানিকে হত্যা করে সন্ত্রাসী ও দখলদার মার্কিন সেনারা। ওই হামলায় ইরাকের জনপ্রিয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হাশদ আশ-শাবি’র উপ প্রধান আবু মাহদি আল-মুহানদিস’সহ মোট ১০ জন নিহত হন। সোমবার তেহরানে জেনারেল সোলাইমানি, আল-মুহানদিস এবং অপর চার ইরানি কমান্ডারের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। আল-মুহানদিসের মরদেহ দাফনের উদ্দেশ্যে ইরানের দক্ষিণাঞ্চলীয় শালামচে সীমান্ত দিয়ে ইরাকে পাঠানো হবে।

এর আগে শনিবার ইরাকের কাজেমাইন, বাগদাদ, কারবালা ও নাজাফ শহরে আলাদা আলাদাভাবে মার্কিন সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এসব নামাজে ইরাকের লাখ লাখ মানুষ অংশগ্রহণ করেন।