নিজস্ব প্রতিনিধি :
শক্তি বেড়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা। তবে বাংলাদেশে নয় ভারতের উপকূলে আঘাত হানার সম্ভাবনা বেশি। কিন্তু ঝড়ের প্রভাবে দেশের প্রায় সব অঞ্চলে বৃষ্টির আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদরা। এদিকে, সাগর উত্তাল থাকায় চার সমুদ্র বন্দরে এক নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) নিম্নচাপের কারণে আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়ে, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি সামান্য পশ্চিম দিকে সরে গিয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে।

নিম্নচাপটি সন্ধ্যা ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে এক হাজার ১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেবে এক হাজার ৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ওই সময় নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৪০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল।

এ সময় উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলেন, ‘এখনও এটি নিম্নচাপের আকারে আছে। আরও ঘনীভূত হয়ে গভীর নিম্নচাপ হবে। এরপর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে এলেই সতর্ক সংকেত বাড়ানো হতে পারে। সেজন্য অপেক্ষা করতে হবে।’
পল্লী নিউজ/ আমু

Print Friendly, PDF & Email