লক্ষ্মীপুরে মুক্তিযোদ্ধাকে মারধরের ঘটনায় মামলা : সংবাদ সম্মেলন

শেয়ার

পল্লী নিউজ ডেস্ক :
লক্ষ্মীপুরে মুক্তিযোদ্ধাকে আটকে রেখে মারধরের অভিযোগের আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। সোমবার (২ জানুয়ারি) রাতে চন্দ্রগঞ্জ থানায় আহত মুক্তিযোদ্ধা নুর মোহাম্মদ বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।
এতে সদর উপজেলার উত্তর জয়পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম চৌধুরী এবং ইউপি সদস্য হারুন, পরান, ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক টিপু সুলতান ও চৌকিদার (গ্রামপুলিশ) আবদুল্লাসহ অজ্ঞাত আরো ৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।
তবে নিজের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার এবং যড়যন্ত্র ও অপপ্রচারের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আ’লীগের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা নুর মোহাম্মদ উত্তর জয়পুর ইউনিয়নের ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা তৈরি করে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নুরুজ্জামানের কাছে জমা দিয়েছেন। গত শনিবার সকাল ১১টার দিকে আ’লীগের প্রভাবশালী চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী মুক্তিযোদ্ধা নুর মোহাম্মদকে ইউপি কার্যালয়ে ডেকে নেয় এবং ভূয়া মুক্তিযোদ্ধার তালিকার ব্যাপারে তাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। এ সময় তিনি প্রতিবাদ জানালে সকল বিবাদীরা তাকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এক পর্যায়ে তাকে ইউপি কার্যালয়ের টয়লেটে আটক করে রাখে। পরে তিনি টয়লেট থেকে বের হয়ে চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে লক্ষ্মীপুরে মুক্তিযোদ্ধাকে আটকে রেখে মারধরের অভিযোগের ঘটনাকে ষড়যন্ত্রমূলক ও অপপ্রচার দাবি করে আওয়ামীলীগের ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী সংবাদ সম্মেলন করেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলার উত্তরজয়পুর ইউপি কার্যালয়ে ১১জন মুক্তিযোদ্ধাকে সাথে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি নিজের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.