লক্ষ্মীপুরে এইচএসসি পরীক্ষার্থী গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ, লাশ উদ্ধার

শেয়ার

লক্ষ্মীপুর :
লক্ষ্মীপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে এইচএসসি পরীক্ষার্থী গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ করেছেন ভিকটিম পরিবার। নিহত গৃহবধূর নাম আসমা উল হোসনা (২০)। রোববার (১৬ এপ্রিল) সকাল ৯টায় নিহত গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। চন্দ্রগঞ্জ থানাধীন হাজিরপাড়া ইউপির পূর্ব আলাদাদপুর গ্রামের পলোয়ান বাড়িতে (স্বামীর বাড়ি) এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূ আসমা উল হোসনা বেগমগঞ্জ উপজেলার আমানউল্যাহপুর ইউপির গৌবিন্দের গ্রামের প্রবাসী হোসেন আহম্মদের মেয়ে।

জানা যায়, ২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল পূর্ব আলাদাদপুর গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে বেল্লাল হোসেন লিটনের সাথে বেগমগঞ্জ উপজেলার আমানউল্যাহপুর ইউপির গৌবিন্দের গ্রামের সৌদি প্রবাসী হোসেন আহম্মদের মেয়ে কলেজছাত্রী আসমা উল হোসনার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী লিটনের সাথে আসমার বনিবনা হচ্ছিলনা।
নিহতের মা, সেলিনা আক্তার জানান, গতকাল শনিবার এইচএসসির বিজ্ঞান পরীক্ষা দিয়ে দুপুরে স্বামীর বাড়িতে ফিরে যায় আসমা। সন্ধ্যায় আসমা তাকে (মাকে) ফোন করে জানায়, আমাকে কেন এখানে বিয়ে দিয়েছো। আমি এখানে অশান্তিতে আছি। আমি বাঁচবো না। আমাকে জল্লাদের কাছে কেন বিয়ে দিছেন? এসব বলে কাঁদতে থাকেন নিহতের মা সেলিনা আক্তার। তিনি অভিযোগ করেন, তার মেয়েকে (আসমা) শনিবার রাতে স্বামী লিটন, দেবর আব্দুল্যাহসহ শ্বশুর শাশুড়ি মিলে হত্যা করেছে।
নিহতের চাচা মো. সহিদ একই অভিযোগ করে বলেন, তার ভাতিজীকে হত্যা করে লাশ বসতঘরের ভিতর ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।
সকালে খবর পেয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানার এসআই মেলকাম ডি সিলভা ও এসআই কবির হোসেনসহ সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠান।

চন্দ্রগঞ্জ থানার এসআই মেলকাম ডি সিলভা বলেন, ময়নাতদন্ত ছাড়া কিছুই বলা যাচ্ছেনা। রিপোর্ট পাওয়ার আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.