রামগতিতে চুরির অপবাদে গাছে বেধে শিশু নির্যাতন, গ্রেফতার ২

শেয়ার

লক্ষ্মীপুর:

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে মো. শিপন (১২) নামের ৫ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রকে ৪০ টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে মাথার চুল কেটে, মুখে কালি দিয়ে ও গলায় জুতার মালা পরিয়ে বর্বর নির্যাতন চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রামগতি থানায় মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত দুই বখাটেকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) বিকালে গ্রেফতারকৃত আবদুল আলী ও জাবেদ হোসেনকে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়। সোমবার (১০ এপ্রিল) রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করে। এর আগে ৫ এপ্রিল বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চর সীতা গ্রামের একটি খেজুর গাছের সাথে শিপনকে বেধে নির্যাতন চালানো হয়। এ ঘটনায় ১০ এপ্রিল সোমবার রাতে  শিশুর বাবা  রামগতি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

নির্যাতিত শিশু শিপন রামগতি উপজেলার চর বাদাম ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের  চর সীতা গ্রামের বাসিন্দা শ্রমিক মো. সিরাজের ছেলে এবং উত্তর পশ্চিম চর সীতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্র।

গ্রেফতার হওয়া আসামী আবদুল আলী উপজেলার চর বাদাম ইউনিয়নের চর সীতা গ্রামের সুজা মিয়ার ছেলে। জাবেদ একই গ্রামের মৃত আবুল বাশারের ছেলে। মামলার অন্য আসামি জিয়া উর রহমান পলাতক রয়েছেন।

শিশুর বাবা মো. সিরাজ ও মা বিলকিস বেগম জানান, শিশু শিপন তার বন্ধুদের সঙ্গে মারবেল খেলছিলো। এসময় খেলার স্থানের পাশে জিয়াউর রহমানের (৪০) বাঁশের সাথে ঝুলানো জামার পকেট থেকে ৪০ টাকা কে বা কারা চুরি করে নিয়ে যায়। এঘটনায় সন্দেহ করে টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে শিপনকে খেজুর গাছের সাথে বেধে বর্বর নির্যাতন করে। এসময় আসামিরা তার মুখে কালি মেখে মাথার চুল কেটে দেয়, গলায় জুতার মালা পরায় এবং হাত পা বেধে রেখে সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত নির্যাতন চালায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় তাকে উদ্ধার করে রামগতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন জানান, শিশু নির্যাতনের ঘটনায় তার বাবা বাদি হয়ে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। দুইজনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে; অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.