রামগঞ্জে ২শ’ একর জমির চাষাবাদ হুমকির মুখে

শেয়ার

রামগঞ্জ:
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার সমেষপুর-সাহারপাড়া সংযোগ খালে বাঁধ দিয়ে ইটভাটায় মাটি নেওয়ার রাস্তা করেন স্থানীয় সুমন মেম্বার ও  দুলালসহ প্রভাবশালী কয়েকজন মাটি ব্যবসায়ী। এতে করে পাশ্ববর্তি মাঠের ২শতাধিক একর জমির বোরো চাষ হুমকীর মূখে পড়ে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভাদুর ইউপি’র সমেষপুরের ওয়ার্ড মেম্বার সালাউদ্দিন সুমন ও মাটি ব্যবসায়ী দুলাল সহ ভাদুর ও ভোলাকোট ইউনিয়নের বরেন্দ্রখাল ও খ্রীজানের খালের সাথে সমেষপুর মাঠের মধ্যখান দিয়ে বয়ে যাওয়া শত বছর পূর্বের প্রবাহমান সংযোগ খালে বাঁধ দিয়ে ইটভাটায় মাঠের টপ সয়েল আনা শুরু করে। ফলে এ মাঠের ২শত একর জমির বোরো মৌসুমসহ চাষাবাদ হুমকীর মূখে পড়বে। উল্লেখ্য, দুই বছর পূর্বে  কৃষকদের দীর্ঘদিনের দাবীর ফলে সরকারের জলাবদ্ধতা দূরিকরন সরকারী প্রকল্পের মাধ্যমে এই খালটি পূর্ন খনন করা হয়।
স্থানীয় কৃষক মোঃ ফারুক হোসেন বলেন, এ খালটিকে কেন্দ্র করে কৃষক শত শত একর জমির ইরিগেশনসহ নানা শাকসবজি চাষাবাদ করে আসছে। কয়েক বছর পূর্বে মাঠের পূর্বপাশে দেহলা গ্রামে আধাঁ কি:মি: আয়োতনের মধ্যে ৪টি ইটভাটা গড়ে উঠায় মাটি ব্যবসায়ীরা প্রভাবখাটিয়ে জমির টপ সয়েল নিয়ে যায়। ফলে শত শত কৃষক তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে হিমশিম খাচ্ছে।
সালাউদ্দিন সুমন মেম্বার জানান, এটা সরকারী খাল নয় ব্যক্তি মালিকানা জমির উপর দিয়ে খালটি হয়েছে। মাটি নেওয়া শেষ হলে বাধটি উঠিয়ে দেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে ভাদুর ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেন ভূঁইয়া জানান, ইউএনও আমাকে বলার পর সড়জমিনে পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্টদের কাজ বন্ধ করে বাঁধ অপসারনের জন্য বলে দিয়েছি।
রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু ইউছুফ জানান, খবর পেয়ে তহশিলদারকে পাঠিয়ে কাজ বন্ধ করা জন্য বলা হয়েছে এবং ইউনিয়ন চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বাঁধ দেওয়ার সাথে জড়িতদের দিয়ে অপসারনের  জন্য। এর পরও যদি আইন অমান্য করলে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.