রামগঞ্জে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জেরে ১ জন নিহত

শেয়ার

আবু তাহের, রামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে জমি সক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আবদুর রহিম(৫০)নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (২৮মে) রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার দরবেশপুর ইউনিয়নের হামিদ আলী শেখের বাড়িতে। আবদুর রহিম উপজেলার দক্ষিন দরবেশপুর হামিদ আলী শেখের বাড়ির মৃত ইদ্রিছ শেখের ছেলে। নিহত আবদুর রহিমের মেঝো ভাই মোঃ সেলিম শেখ জানান, একই বাড়ির জয়নাল আবেদীনের দুই ছেলে আবুল কালাম ও কামাল হোসেন, আফাজ উদ্দিনের ছেলে আবদুল মান্নান ভুট্টা, আনা মিয়ার ছেলে সাবেক মেম্বার মোঃ মোস্তফার সাথে তাদের পারিবারিক জমিজমা নিয়ে দীর্ঘ দিনের বিরোধ চলে আসছে।

এ বিষয়ে লক্ষ্মীপুর আদালতে একটি দেওয়ানী মামলা চলমান(২৮মে)মঙ্গলবার সকালে আবদুর রহিমের সাথে প্রতিপক্ষের ঝগড়াও কথা কাটাকাটি হয়। তখন তারা আমার ভাইকে হুমকি দমকি দিয়েছে। রাত সাড়ে ৮টায় আমার ভাই সমিতির বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে তারা ভাই এর উপর হামলা করে ।আমার ভাই মৃত্যুর আগে বলেছে, তাকে মারধর করা হয়েছে এবং সে প্রতিপক্ষের লোকজনের নাম বলেছে।

এবিষয় আবদুল রহিমের স্ত্রী শাহীনুর বেগম জানান, একই বাড়ির জয়নাল আবেদীনের দুই ছেলে আবুল কালাম ও কামাল হোসেন, আফাজ উদ্দিনের ছেলে আবদুল মান্নান ভুট্টা, আনা মিয়ার ছেলে সাবেক মেম্বার মোস্তফা কামালের দুই ছেলে শান্ত ও শাওনদের সাথে ২শতক জায়গা নিয়ে দীর্ঘ দিনের বিরোধ চলে আসছে।

এ বিরোধ কে কেন্দ্র করে তারা আমার স্বামীকে হুমকি দমকি দিয়ে আসছে। মঙ্গলবার রাতে সমিতির বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে তারা আমার স্বামীর উপর হামলা করে। চিৎকার করলে বাড়ির লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আমার স্বামী মৃত্যুর পূর্বে আমাকে আবু কালাম ও কামাল হোসেন সহ চার জনের নাম বলে গেছে। আমি খুনিদের উপযুক্ত বিচার চাই। এ ঘটনার পর পর লক্ষ্মীপুর জেলা সহকারী পুলিশ সুপার(রাইপুর সার্কেল) আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী ও রামগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ সোলাইমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। মোস্তফা কামাল নামে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছেন এবং লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সোলাইমান বলেন,এবিষয় মামলার প্রস্তুতি চলছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সম্পর্কিত খবর

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.