রামগঞ্জে গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন

শেয়ার

 

রামগঞ্জ প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে চুরির অপবাদ দিয়ে এক গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রোববার রাতে আওয়ামীলীগ নেতাসহ ৫জনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হলেও সোমবার বিকেল পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অভিযোগ রয়েছে শালিশী বৈঠকে গ্রাম্য মাতাব্বর মেম্বার মোঃ খিজির আহম্মেদ, মোঃ বিল্লাল ও নারায়নপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম দুলুর উপস্থিতিতে বিচারের রায়ের ২০ হাজার টাকা দিতে না পারায় ওই গৃহবধুর একটি গরু লুট করা হয়। এদিকে গৃহবধুকে বিবস্ত্র করার ভিডিও চিত্র ফেইজবুক সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় উপজেলাব্যাপী জনসাধারনের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে (২মার্চ ২০১৭ইং) বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় উপজেলার ৫নং চন্ডিপুর ইউনিয়নের ফকিরপুর গ্রামের গোল মাধের বাড়িতে। আনোয়ারা বেগম ওই বাড়ির দিনমুজুর মোঃ মনিরের স্ত্রী। স্

থানীয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার চন্পিুর ইউনিয়নের ফকিরপুর গ্রামের গোল মাধের বাড়ির দিনমজুর মনিরের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম নিজের কয়েকটি খেজুর গাছ পাশ্ববর্তী নারায়নপুর গ্রামের রাজের বাড়ির সলেমানকে বর্গা দেয়। কিন্তু বর্গা দেওয়ার পর সলেমান গৃহবধু আনোয়ারাকে রস না দিয়ে নিজেই একাএকা ভোগ করতে থাকে। পরে বৃহস্পতিবার সন্ধার পর আনোয়ারা বেগম নিজেই বাড়ির পাশেই একটি খেজুর গাছের রস আনতে যায়। এসময় সোলেমান তার দলবল নিয়ে গৃহবধু আনোয়ারা বেগমকে চোর আখ্যা দিয়ে ঘটনাস্থলে বেদম মারধর করে আটক করে পাশ্ববতী নারায়নপুর ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ বিল্লাল, ফকিরপুর ওয়ার্ডের মেম্বার খিজির আহম্মেদ ও নারায়নপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী খোরশেদ আলম দুলুর উপস্থিতি শালিসী বৈঠক বসিয়ে জোরপূর্বক গৃহবধু আনোয়ারা বেগমকে চোর আখ্যা দিয়ে রায়ে ২০হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু আনোয়ারা ওই টাকা দিতে অস্বীকার করায় শতশত গ্রামবাসীর উপস্থিতি সলেমানের নেতৃত্বে বাড়ির আহসান উল্যা,কাউনিয়া বাজারের আঃ মান্নান, এমরান, নারায়নপুরের আঃ রব, মোঃ লিটন, মোঃ স্বপনসহ স্থানীয় লোকজন গৃহবধু আনোয়রাকে বেদম মারধর করে তার পরনের কাপড় খুলে বিবস্ত্র করে তার উপর অমানুষিক নির্যাতন চালায়। পরে একপর্যায়ে তার গোয়ালঘর ৪০ হাজার টাকা মূল্যের একটি গরু লুট করে নিয়ে যায়।

নির্যাতিতা গৃহবধু আনোয়ারা বেগম জানান, সম্পত্তি নিয়ে আমার বাড়ির ও আশপাশের লোকজনের সাথে বিরোধ চলে আসছে। আমাকে এলাকাছাড়া করতে মেম্বার খিজির আহম্মেদ, বিল্লাল ও আওয়াীলীগ নেতা খোরশেদ পরিকল্পিত ভাবে চোর বানিয়ে মারধর,নির্যাতন এবং ভিডিও করে তা ফেইজবুকে ছাড়িয়ে দেয়। এখন আমিন মানসম্মানের ভয়ে কাউকে মুখ দেখাতে পারছিনা। এছাড়াও ভয় আর আতংকে গত ৪দিন আমি ঘুমাতে পানিনি।

অভিযুক্ত সোলেমান জানান, চোর হিসেবে প্রমানের জন্য এলাকাবাসী ভিডিও করেছে। তবে সে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় পরনের কাপড় ঝাপ্টিয়ে ধরলে তা খুলে যায়। এতে আমার দোষ নেই। কে ভিডিও বা এসব ঘটনা ঘটিয়েছে তা আমি জানিনা।

মেম্বার খিরিজ আহম্মেদ ও বিল্লাল হোসেন জানান, ওই মহিলার কাপড় খুলে ভিডিও করার বিষয়ে আমরা কিছু জানিনা। এ বিষয়ে সলেমান ভালো বলতে পারবে। মোবাইলে খবর পেয়ে রাত ১১টায় আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। তবে তথ্য প্রমানের ভিত্তিতে আনোয়ারা চোর প্রমানিত হওয়ায় কিছু টাকা জরিমানা করেছি। কিন্ত তার কাছে টাকা না থাকার করনে তার একটি গরু মেম্বার খিরিজের জিম্মায় রাখা হয়েছে। টাকা দিলে গরু দিয়ে দেওয়া হবে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মহসিন জানান, রোববার বিকেলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, তদন্তের স্বার্থে এখন বেশী কিছু বলা যাচ্ছেনা। তবে মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। চন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কামাল হোসেন ভূইয়া জানান, আমার মেম্বারের মুখে ঘটনাটি শুনেছি। তবে বিস্তারিত বলতে পরবোনা। ওই চোর মহিলা নাকি থানায় মামলাও করেছে।

রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ তোতা মিয়া  জানান, এ বিষয়ে ৫ জনকে আসামী করে থানায় মামলা হয়েছে। তদন্ত চলছে। ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.