তানোর পৌরসভার ভদ্রখণ্ড গ্রামের কৃষক আক্কাছ আলী জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার রান্নাঘর থেকে একে একে ১২৫টি গোখরার বাচ্চা স্থানীয়রা মেরে ফেলে।

আক্কাছ বলেন, সন্ধ্যার পর তার স্ত্রী হাসনা বিবি রান্নাঘরের মেঝেতে তিনটি গোখরার বাচ্চা দেখে আতঙ্কে চিৎকার দেন।

খবর পেয়ে এগিয়ে যান আক্কাছ আলী। পরে তার দুই ছেলে হাসিবুর রহমান ও আজিবুর রহমান এগিয়ে যান। তারা তিনজনে মিলে তিনটি সাপের বাচ্চা মারার পর ঘরের কোনায় গর্ত থেকে আরও সাপের বাচ্চা বেরিয়ে আসতে দেখেন বলে জানান আক্কাছ আলী।

তিনি বলেন, একপর্যায়ে প্রতিবেশীরাও তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। সব মিলিয়ে মোট ১২৫টি সাপ মারা হয়। পরে তারা গর্ত খুঁড়ে আরও ১৩টি সাপের ডিম দেখতে পান বলে জানান।

“সাপগুলো এক থেকে দেড় ফুটের মতো লম্বা। কিছু আরও ছোট। কেবলই ডিম থেকে বেরিয়েছে তারা।”

আক্কাছ আলী লম্বা একটি মা সাপ গর্ত থেকে বেরিয়ে পালিয়ে যেতে দেখেছেন বলে জানান।

তিনি বলেন, “পুরনো মাটির বাড়ি হওয়ায় ইঁদুরের গর্তে ডিম দিয়ে বাচ্চা ফুটিয়েছে মা গোখরাটা। সাপের বাচ্চাদের বাপ-মা বেঁচে থাকায় পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কে রয়েছে। ছেলেমেয়েরা বাড়িতেই থাকতে চাচ্ছে না।”

ওই গ্রামের কলেজছাত্র আল আমিন বলেন, সন্ধ্যায় চেঁচামেচি শুনতে পেয়ে তারা দৌড়ে যান ওই বাড়িতে।

“গিয়ে দেখি, ১২৫টি বাচ্চা সাপ মেরে ডালায় রেখেছেন আক্কাছ আলী। তিনি সেগুলোর ছবিও তোলেন মোবাইল ফোনে।”

ঘটনার পর থেকে আক্কাছ আলীল বাড়িতে সাপ দেখতে স্থানীয় লোকজন ভিড় জমাচ্ছে বলে জানান কলেজছাত্র আল আমিন।

এর আগে মঙ্গলবার রাত ১১টা থেকে ৩টা পর্যন্ত রাজশাহী শহরের বুধপাড়ায় মাজদার আলীর শোয়ার ঘরের মেঝে ও দেয়াল খুঁড়ে একে একে মারা হয় ২৭টি গোখরা

সেটাও পুরনো মাটির বাড়ি। বৃহস্পতিবার সেখানে মারা পড়ে আরও একটি সাপ। সেগুলোও বাচ্চা হলেও আড়াই ফুটের মতো লম্বা ছিল।

এসব ঘটনায় এসব এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email