• ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপট:

বাঙালি জাতীয়তাবাদের মূলভিত্তি হচ্ছে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন। দাসত্বের শিকল বাঙালি জাতির ভাষা-সংস্কৃতিকে বোবা করে রেখেছিল।সে কারনেই  বাংলা ভাষা আন্দোলন ছিল তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে সংঘটিত একটি সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন ।সে কারনেই বাংলাদেশে ভাষা আন্দোলন জাতীয় চরিত্রের একটি ঐতিহাসিক আন্দোলন।বাঙালির ভাষা আন্দোলনের ফলাফল  সারা বিশ্বেই আজ স্বীকৃত ও দৃশ্যমান। ফলে ২১ ফেব্রুয়ারি  আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।১৯৪৭ সালের ১৪ ই আগস্ট পাকিস্তান এবং ১৫ ই আগস্ট ভারত স্বাধীনতা লাভ করে।অত:পর একদিকে  ভারত রাষ্ট্রের নেতৃবৃন্দ দেশে একটি যুক্তরাষ্ট্রীয় প্রকৃতির সংসদীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তনের নীতি গ্রহণ করেন। অপরদিকে পাকিস্তান রাষ্ট্রের নেতৃবৃন্দ দেশে যুক্তরাষ্ট্রীয় প্রকৃতির সংসদীয় শাসন ব্যবস্থা  না করে পূর্ব বাংলার নিরীহ শান্তিপ্রিয় পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ভাষা বাংলার পরিবর্তে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার ষড়যন্ত্র শুরু করে। অথচ পাকিস্তানের মোট জনসংখ্যার ৫৬% লোক বাংলা এবং মাত্র ৭% লোক উর্দু ভাষায় কথা বলত।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়  সহ সারা দেশের ছাত্র জনতা এর তীব্র বিরোধীতা এবং কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলে।এই সময় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও সক্রিয় ভূমিকা রাখেন।

ক• ভাষা আন্দোলনের প্রস্তুতিকালে ছাত্র মুজিবের ভূমিকা:

পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পরপরই মুসলিম লীগ শাসকগোষ্ঠী বাংলার মানুষকে এবং বাংলার নেতৃত্বকে  অত্যন্ত সুকৌশলে ধ্বংস করার মানসে  বাংলা ভাষা ধ্বংস করার পরিকল্পনায় মেতে উঠে।। তারা পূর্ব বাংলার ধর্মান্ধ এবং  ইসলাম প্রিয় মানুষকে  ভুল বুঝিয়ে  নিত্য ব্যবহার্য খাম, ডাকটিকিট, রেলগাড়ির টিকিট, বিভিন্ন ধরনের ফরম প্রভৃতিতে বাংলা ভাষা ব্যবহারের পরিবর্তে ইংরেজী এবং  উর্দুর ব্যবহার শুরু করে। ফলে ঢাবি এবং জবির ছাত্ররা সহ পূর্ব বাংলার শিক্ষিত ও সচেতন সমাজ এতে করে চরম ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত হয়। এসময় আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. জিয়াউদ্দীন আহমেদ উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে অভিমত ব্যক্ত করলে, বিশিষ্ট চিন্তাবিদ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ দৈনিক আজাদ’ পত্রিকায় একটি প্রবন্ধ লিখে তীব্র প্রতিবাদ করেন।এছাড়াও তৎকালীন প্রগতিশীল ও গণতন্ত্রমনা ছাত্ররা  রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন।১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বরে শেখ মুজিব কলকাতা থেকে ঢাকায় আসেন এবং ১৫০ মোগলটুলীতে ওঠেন।  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগে ভর্তি হবার পর গন আজাদী লীগ নেতা তাজউদ্দিনের সাথে তাঁর যোগাযোগ হয়। এই গন আজাদী লীগ বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষার করার স্বপক্ষ শক্তি ছিল।

খ•গণতান্ত্রিক যুবলীগ গঠনের মাধ্যমে শেখ মুজিবের ভূমিকা:

পাক- ভারত বিভক্তির পরই শেখ মুজিবুর রহমান বুঝতে পেরেছিলেন মুসলিম লীগের সাথে থেকে বাংলার মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। তাই ঢাকায় ফিরে এসেই ঢাকায় মুসলিম লীগ বিরোধী ছাত্র, যুব ও রাজনৈতিক কর্মীদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেন। ফলশ্রুতিতেই প্রদেশব্যাপী প্রস্তুতির পর শেখ মুজিবুর রহমান, কামরুদ্দীন আহমেদ, শামসুল হক, তাজউদ্দীন আহমেদ, শামসুদ্দীন আহমেদ, তসাদ্দক আহম্মেদ প্রমুখের উদ্যোগে ১৯৪৭ সালের ৬ ও ৭ সেপ্টেম্বর ঢাকায় গঠিত হয় পাকিস্তান গণতান্ত্রিক যুবলীগ ও এর সভাপতি মনোনীত হন তসাদ্দক আহমেদ। এই সংগঠনটি ছিল সারা পাকিস্তানে একমাত্র অসাম্প্রদায়িক সংগঠন। যুবলীগ নবগঠিত পাকিস্তানের গণতন্ত্র, প্রাদেশিক স্বায়ত্তশাসন ও ভাষা বিষয়ে প্রস্তাব গ্রহণ করে। উক্ত প্রস্তাবে বলা হয় :

বাংলা ভাষাকে পূর্ব পাকিস্তানের শিক্ষার বাহন ও আইন আদালতের ভাষা করা হউক। সমগ্র পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা কি হইবে তৎসম্পর্কে আলাপ-আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ভার জনসাধারণের উপর ছাড়িয়া দেওয়া হউক এবং জনগণের সিদ্ধান্ত ই চূড়ান্ত বলিয়া গৃহীত হউক।

এদিকে ভাষা  আন্দোলনের প্রথম দিকে তমদ্দুন মজলিশের বেশ স্বতঃস্ফূর্ত ভূমিকা ছিল। পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠী বাংলা ভাষার বিরুদ্ধে যখনই কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এই সংগঠনটি তখনিই তার জোরাল প্রতিবাদ জানিয়েছে। আর এই প্রতিবাদ শামিল হয়েছে ঢাকার শিক্ষিত সচেতন মানুষ ও ছাত্রসমাজ। শেখ মুজিবও রাষ্ট্রভাষা সংক্রান্ত বহু কাজে এই সংগঠনটিকে সাহায্য ও সমর্থন করেছেন।

এদিকে করাচীর শিক্ষা সম্মেলনে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব করা হয়।শুরু হয় আন্দোলন।পূর্ব বাংলার শিক্ষিত সমাজ  এবং  তমদ্দুন মজলিশ বাংলা কে  রাষ্ট্র ভাষা করার দাবিতে আন্দোলনে একত্মতা ঘোষণা করে। তমদ্দুন মজলিশের উদ্যোগে ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে মুসলিম ছাত্রলীগ, গণতান্ত্রিক যুব লীগ ও তমদ্দুন মজলিশের সমন্বয়ে গঠিত হয় প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ।এই  পরিষদ বাংলা ভাষার আন্দোলনকে এগিয়ে নেয়ার জন্য বেশকিছু কর্মসূচী গ্রহণ করে। এসব কর্মসূচীর অংশ হিসেবে তৎকালীন পাকিস্তানের শিক্ষামন্ত্রী ফজলুর রহমান ঢাকা সফরে এলে রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ ১৯৪৮ সালের ১ ফেব্রুয়ারি তার সাথে দেখা করে পাকিস্তান পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষার বিষয় তালিকা থেকে বাংলা ভাষাকে বাদ দেয়া, পাকিস্তানের মুদ্রা, ডাকটিকিট ইত্যাদিতে বাংলা ভাষা স্থান না পাওয়ার কারণ জানতে চান এবং এগুলোতে বাংলা ভাষা প্রবর্তনের দাবি জানান। ফজলুর রহমানের সাথে সাক্ষাতের পর পরিষদ ফেব্রুয়ারি মাসেই বাংলা ভাষার দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপিতে স্বাক্ষর অভিযান শুরু করে এবং কয়েক হাজার মানুষের স্বাক্ষর নিয়ে সেটি সরকারের কাছে পাঠায়। উল্লেখ্য যে এই স্বাক্ষর অভিযানে অন্যান্যদের সাথে শেখ মুজিবও অংশগ্রহণ করেন এবং সেজন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেন।

 গ• ছাত্রলীগ গঠনের মাধ্যমে  ভাষা আন্দোলনে শেখ মুজিবের সক্রিয় ভূমিকাঃ

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত প্রতিটি আন্দোলনে ছাত্রলীগ বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে। এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন শেখ মুজিবুর রহমান। এক্ষেত্রে তিনি তাঁর কলকাতার ছাত্রজীবনের সাংগঠনিক অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগান। ১৯৩৮ সালে ‘নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্র ফেডারেশন বিলুপ্ত করে গঠন করা হয় নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে এই সংগঠনটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।যাই হোক, নিখিল পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের তখন প্রতিদ্বন্দ্বী দুই নেতা ছিলেন শাহ আজিজুর রহমান ও শেখ মুজিবুর রহমান। শাহ আজিজুর রহমান ছিলেন সাম্প্রদায়িক মনোভাবাপন্ন ও মুসলিম লীগ সরকারের কট্টর সমর্থক। অপরদিকে শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অসাম্প্রদায়িকতার অনুসারী এবং মুসলিম লীগ সরকারের ঘোর বিরোধী। পাকিস্তান সৃষ্টির পরপরই শেখ মুজিব পূর্ব বাংলার জনগণের বিরুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী ও মুসলিম লীগ নেতাদের উপনিবেশিক আচরণ, বাংলা ভাষার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রভৃতি উপলব্ধি করে সরকার বিরোধী আন্দোলনের লক্ষ্যে একটি অসাম্প্রদায়িক সংগঠন গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন।ফলশ্রুতিতেই ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফজলুল হক হলে এক কর্মীসভায় গঠিত হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ। নবগঠিত এই সংগঠনটিতে শুধুমাত্র কৌশলগত কারণেই ‘মুসলিম’ শব্দটি ব্যবহার করা হয় পরবর্তীকালে সুযোগ বুঝে শেখ মুজিব মুসলিম শব্দটি বাদ দিয়ে দলের নামকরণ করেন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ। এর আহ্বায়ক নির্বাচিত হন নঈমুদ্দীন আহমদ। পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্র লীগের সাংগঠনিক কমিটি ছিল নিম্নরূপ :১. নঈমুদ্দীন আহমদ, ২. আব্দুর রহমান চৌধুরী (বরিশাল), ৩. শেখ মুজিবুর রহমান (ফরিদপুর) ৪. অলি আহাদ (কুমিল্লা), ৫. আজিজ আহমদ (নোয়াখালী), ৬. আবদুল মতিন (পাবনা), ৭. দবিরুল ইসলাম (দিনাজপুর), ৮. মফিজুর রহমান (রংপুর), ৯. শেখ আব্দুল আজিজ (খুলনা), ১০. নওয়াব আলী (ঢাকা), ১১. নুরুল কবির (ঢাকা), ১২, আব্দুল অজিজ (কুষ্টিয়া) ১৩. সৈয়দ নূরুল আলম ও ১৪. আবদুল কুদ্দুস চৌধুরী।পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ যে ১০ দফা দাবি ঘোষণা করে তার মধ্যে অন্যতম ছিল বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্র ভাষা করা।

ঘ• ধর্মঘটে নেতৃত্বের  মাধ্যমে মুজিবের ভূমিকা:

১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। এই অধিবেশনে পূর্ব বাংলা থেকে নির্বাচিত গণপরিষদ সদস্য ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত উর্দু ও ইংরেজীর সাথে বাংলাকেও গণপরিষদের অন্যতম সরকারী ভাষা করার প্রস্তাব করেন। প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান এই প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করেন এবং বলেন, পাকিস্তান একটি মুসলিম রাষ্ট্র এবং মুসলিম জাতির ভাষাই হইবে। ইহার রাষ্ট্রভাষা। উপমহাদেশের দশ কোটি মুসলমানের দাবির ফলে পাকিস্তানের সৃষ্টি হইয়াছে এবং এই দশ কোটি মুসলমানের ভাষা হইল উর্দু।পূর্ববঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীনও এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন। বাংলাকে গণপরিষদের অন্যতম সরকারী ভাষার দাবি বাতিল হবার সংবাদ পূর্ব বাংলায় এসে পৌঁছলে প্রগতিবাদী ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী মহল ক্ষোভে ফেটে পড়ে। গণপরিষদের এই বাংলাভাষা বিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ধর্মঘট আহ্বান করা হয়। ধর্মঘট চলাকালীন ঢাকার ছাত্র সমাজ বাংলা ভাষার দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দিতে শহর প্রদক্ষিণ করে। আর এই মিছিলের পুরো ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনায় বলিষ্ঠ নেতৃত্ব প্রদান করেন শেখ মুজিবুর রহমান। বাংলা ভাষার মর্যাদা সমুন্নত রাখতে ১৯৪৮ সালের ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফজলুল হক হলে সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক কর্মীদের এক সভা আহ্বান করা হয় । কামরুদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে শেখ মুজিবুর রহমান, শামসুল হক, অলি আহাদ, মোহাম্মদ তোয়াহা, রনেশ দাসগুপ্ত, অজিত গুহ, আবুল কাসেম, কাজী গোলাম মাহবুব, নঈমুদ্দীন আহমেদ, শহীদুল্লাহ কায়সার, তাজউদ্দিন আহমদ, শওকত আলী, সরদার ফজলুল করিম, শামসুদ্দীন আহমদ, তফাজ্জল আলী প্রমুখ।

ঙ•কারা বরনের এবং পুলিশী নির্যাতন শিকারের  মাধ্যমে ভাষা আন্দোলনে  শেখ মুজিবের ভূমিকা:

১১ মার্চ সকালেই ধর্মঘট সফল করার জন্য ছাত্ররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে অবস্থান গ্রহণ করে। শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ, শামসুল হক, কাজী গোলাম মাহবুব, শওকত আলী প্রমুখ সেক্রেটারিয়েটের পাশে পিকেটিং-এর জন্য অবস্থান নেয়। শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ, শামসুল হক প্রমুখ সেক্রেটারিয়েটের ১ নং গেট (আব্দুল গনি রোড), কাজী গোলাম মাহবুব, শওকত আলী প্রমুখ ২ নং গেটে (তোপখানা রোড) অবস্থান নেন। রমনা পোস্ট অফিসের সামনে অবস্থান নেন মোহাম্মদ তোয়াহা, সরদার ফজলুল করীম প্রমুখ। সেক্রেটারিয়েটের ১ নং এবং ২ নং উভয় গেটেই পুলিশের সাথে এসব ছাত্র নেতার তুমুল বাকবিতগ্তা হয়। ১ নং গেটে পুলিশ অফিসার শামসুদ্দোহার সাথে শেখ মুজিবের উত্তপ্ত তর্ক বিতর্ক হয় এবং এক পর্যায়ে তা হাতাহাতিতে গিয়ে দাঁড়ায়। পুলিশের সাথে কথা কাটাকাটির অভিযোগে শেষপর্যন্ত শেখ মুজিবুর রহমান, শামসুল হক, অলি আহাদ, কাজী গোলাম মাহবুব, শওকত আলীকে গ্রেফতার করে ওয়াইজঘাটের কতোয়ালি থানায় এবং সেখান থেকে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ছাত্রনেতাদের সাথে অনেক কর্মীও কারাবরণ করেন।এভাবে ভাষার দাবিতে আন্দোলন তীব্র আকার ধারণ করলে পূর্ব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীন পূর্ব বাংলার   পরিষদের নেতাদের সাথে আপোস চুক্তি করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন।  ১৫ মার্চ রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ ও নাজিমউদ্দীনের মধ্যে আট দফা দাবি সম্বলিত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তির দাবীগুলো ছিল নিম্নরূপ:

১. ভাষা আন্দোলনে ধৃত বন্দীদের অবিলম্বে বিনাশর্তে মুক্তি দিতে হবে।

২. পূর্ব বাংলার আইনসভা এই মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে যে, পূর্ব বাংলার অফিস আদালতের ভাষা এবং শিক্ষার মাধ্যম হবে বাংলা।

৩. বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে সুপারিশ করে পূর্ব বাংলার আইনসভা বিশেষ প্রস্তাব গ্রহণ করবে।

৪. ভাষা আন্দোলনে যারা অংশগ্রহণ করেছেন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে না।

৫. পুলিশ কর্তৃক ভাষা আন্দোলনকারীদের অত্যাচারের অভিযোগ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে এ বিষয়ে বিবৃতি দিবেন।

৬. সংবাদপত্রের উপর থেকে নিষেদাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে।

৭. ২৯ ফেব্রুয়ারি হতে পূর্ব বাংলার যেসব স্থানে ভাষা আন্দোলনের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে সেখান থেকে তা প্রত্যাহার করা হবে।

৮. ভাষা আন্দোলনকারীরা পাকিস্তানের শত্রু নয়, মঙ্গলকামী বলে বিবৃতি দিতে হবে।

চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হবার পূর্বে আবুল কাসেম, কামরুদ্দিন আহমদ প্রমুখ ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে আটক শেখ মুজিবুর রহমান, শামসুল হক, অলি আহাদ, শওকত আলী, কাজী গোলাম মাহবুব প্রমুখ ছাত্র-নেতার সাথে দেখা করেন এবং তাদেরকে চুক্তিটি দেখান। তাঁরা চুক্তির দাবীগুলো দেখার পর সেগুলো সমর্থন ও অনুমোদন করেন। এরপর সংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ বর্ধমান হাউসে ফিরে এলে সরকারের পক্ষে খাজা নাজিমুদ্দীন এবং সংগ্রাম পরিষদের পক্ষে কামরুদ্দীন আহমদ চুক্তিটি স্বাক্ষর করেন।

১৫ মার্চ চুক্তি অনুযায়ী ভাষা আন্দোলনে বন্দী ছাত্রদের মুক্তি দেয়ার জন্য জেল গেটে আনা হলে এক জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সেদিন কমিউনিস্ট নেতা সত্যেন সেন, রনেশ দাশগুপ্ত ছাড়াও জাকির হোসেন, শওকত, আলী, কাজী গোলাম মাহবুব প্রমুখের বিরুদ্ধে ভাষা আন্দোলন ছাড়াও অন্যান্য ক্ষেত্রে মামলা থাকায় তাদের মুক্তির নির্দেশ আসেনি। ফলে তাদেরকে বাদ দিয়ে শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্য বন্দীরা জেলখানা পরিত্যাগ করতে অস্বীকার করেন। এতে করে জেলগেটে চরম উত্তেজনা ও হৈ হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। শেষ পর্যন্ত অনিচ্ছা সত্ত্বেও সরকার সকল রাজবন্দীকে মুক্তি দিতে বাধ্য হন। জেল থেকে মুক্তি পাবার পর শেখ মুজিবসহ অন্যান্য ছাত্রনেতাকে একটি ট্রাকে করে সারা শহর প্রদক্ষিণ করানো হয় এবং সেদিন সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফজলুল হক হলে তাদের সংবর্ধনা দেয়া হয়।

১৬ মার্চ সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফজলুল হক হলে রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত বৈঠকে ১৫ মার্চ সম্পাদিত চুক্তির কয়েকটি স্থান সংশোধন করে সেই সংশোধনী প্রস্তাব সাধারণ ছাত্র- ছাত্রীদের সভায় পেশ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শেখ মুজিব সেই নির্ধারিত ছাত্রসভায় উপস্থিত হলে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা তাকে সেই সভায় সভাপতিত্ব করার অনুরোধ জানান। শেখ মুজিব তাতে রাজী হন এবং তাঁর সভাপতিত্বে সভার কাজ শুরু হয়। সভায় নিম্নোক্ত প্রস্তাবগুলো গৃহীত হয়:

১. ঢাকা ও অন্যান্য জেলায় পুলিশী বাড়াবাড়ি সম্পর্কে তদন্তের জন্য সংগ্রাম কমিটি কর্তৃক অনুমোদিত এবং সরকারী ও বেসরকারী সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত একটি তদন্ত কমিটি নিয়োগ করতে হবে।

২. বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দানের সুপারিশ করে প্রস্তাব গ্রহণের উদ্দেশ্যে আলোচনার জন্য পূর্ব বাংলার আইন পরিষদের অধিবেশন চলাকালে একটি বিশেষ দিন নির্ধারণ করতে হবে।

৩. সংবিধান সভা কর্তৃক তার উপরোক্ত সংশোধনী প্রস্তাবগুলো অনুমোদন করাতে ব্যর্থ হলে সংবিধান সভার এবং পূর্ব বাংলা মন্ত্রিসভার সদস্যদের পদত্যাগ করতে হবে।

প্রস্তাবগুলো গৃহীত হবার পর সেটি অলি আহাদের মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রী নাজিমুদ্দীনের কাছে পাঠিয়ে দেয়া হয়। শেখ মুজিব এরপর বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার সপক্ষে এক জ্বালাময়ী বক্তৃতা দেন এবং বক্তৃতা শেষে সাধারণ ছাত্রদের পরিষদ ভবনের দিকে অগ্রসর হবার আহবান জানান। এরপর এক বিরাট মিছিল সহকারে তিনি পরিষদ ভবনের দিকে অগ্রসর হন এবং মিছিলের পুরোভাগে থেকে স্লোগান তোলেন, “চলো চলো এ্যাসেম্বলি চলো” । মিছিলটি পরিষদ ভবনের কাছে এলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। ছাত্ররা এতে বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে এবং নাজিমুদ্দীন মন্ত্রিসভার পদত্যাগ ও পুলিশী নির্যাতনের অবসান দাবি করে। এসময় পুলিশ লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস ও বন্দুকের ফাকা আওয়াজ শুরু করলে শওকত আলীসহ ১৯ জন ছাত্র মারাত্মক আহত হন। এরপর ছাত্ররা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে।এভাবে শেখ মুজিবুর রহমানসহ অন্যান্য ছাত্রনেতার সুযোগ্য ও সাহসী নেতৃত্বে ভাষা আন্দোলন সারা প্রদেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে এবং তা গণআন্দোলনে রূপান্তরিত হয়। এই আন্দোলনে শুধু ছাত্র সমাজই নয় ছাত্রনেতাদের বিশেষ করে শেখ মুজিবের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে মুগ্ধ হয়ে বৃদ্ধ বয়সে ফজলুল হকও অংশগ্রহণ করেন এবং পুলিশী নির্যাতনের শিকার হন।

চ•মোহাম্মদ আলীর জিন্নাহর ঢাকায় বাংলা ভাষা বিরোধী বক্তব্যের সরাসরি প্রতিবাদের মাধ্যমে     শেখ মুজিবের ভূমিকা:

১৯৪৮ সালের ১৯ মার্চ জিন্নাহ বিকেলের দিকে ঢাকা এসে পৌঁছান। এরপর ২১ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ভাষণদানকালে বাংলা ভাষার বিরোধিতা করে বলেন, একমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা। যারা এ ব্যাপারে বিভ্রান্তির-সৃষ্টি করছেন তাঁরা বিদেশী রাষ্ট্রের অর্থভোগী চর তথা পাকিস্তানের শত্ৰু। রাষ্ট্রভাষা একটি হলে কোন জাতি ঐক্যবদ্ধ থাকতে পারে না। জিন্নাহর এই বক্তব্য সাধারণ মানুষ তেমন কোন প্রতিবাদ না করলেও ছাত্ররা ঠিকই না’ ‘না বলে এর প্রতিবাদ করে। শেখ মুজিবই সকলের আগে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করে বলেছিলেন, ‘না’ বাংলাকেই রাষ্ট্রভাষা করতে হবে।আর ছাত্র সমাজের এই সমবেত প্রতিবাদেও নেতৃত্ব প্রদান করেন শেখ মুজিবুর রহমান, তাজউদ্দিন আহমদ ও আব্দুল মতিন। রেসকোর্সের ময়দানে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বাঙালির প্রাণের ভাষা, মায়ের ভাষা বাংলাকে কটাক্ষ করে যে বক্তৃতা দিয়েছিলেন তাতে করে বাংলার ছাত্রসমাজ পরিষ্কার বুঝতে পেরেছিল যে জিন্নাহ কার্জন হলের সমাবর্তনেও বাংলা ভাষাকে আক্রমণ করে অনুরূপ বক্তব্য রাখবেন। তাই শেখ মুজিবুর রহমান, আব্দুল মতিন, তাজউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ ছাত্রনেতা জিন্নাহর বাংলাভাষা বিরোধী এমন আচরণের প্রতিবাদ করার জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলেন। ফলশ্রুতিতেই ২৪ মার্চ জিন্নাহ একমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা বলে ঘোষণা দিলে কার্জন হলের ছাত্ররা সম্মিলিতভাবে না’, ‘না প্রতিবাদ করে জিন্নাহর কণ্ঠস্বরকে রুদ্ধ করে দেয়।

ছ•জ্বালাময়ী বক্তৃতা প্রদানের মাধ্যমে শেখ মুজিবের ভূমিকা: 

১৯৪৯ সালে শেখ মুজিব আওয়ামী মুসলিম লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হবার প্রায় একমাস পর  জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে জেলখানা থেকে মুক্তি লাভ করেন। জেলখানা থেকে বের হয়েই তিনি ভাষা আন্দোলনসহ পূর্ব বাংলার স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে আন্দোলনে শরীক হন। ২৯ জুলাই তিনি নারায়ণগঞ্জে এক সাংগঠনিক সফরে যান এবং সেখানে ছাত্রলীগের প্রকাশ্য সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে এক জ্বালাময়ী বক্তৃতা দেন। প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী এই গুরুত্বপূর্ণ বক্তৃতায় তিনি ছাত্রলীগের ১০ দফার অন্যতম দাবি বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা ও পাকিস্তানের নৌবাহিনীর সদর দপ্তর করাচি থেকে চট্টগ্রামে স্থানান্তরের দাবি জানান।এভাবে ১৯৫০ সালে ১ জানুয়ারি শেখ মুজিব আবারো গ্রেফতার হন।শেখ মুজিব মুক্তিলাভ করেন ১৯৫২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু এই দীর্ঘ সময় তিনি জেলখানায় আটক থাকলেও একেবারে বসে থাকেননি। ভাষা আন্দোলনসহ সরকার বিরোধী অন্যান্য আন্দোলনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ ও দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

জ• জেলে বন্দি শেখ মুজিব এবং ২১ ফেব্রুয়ারির ঘটনা

এমন একটা পরিস্থিতিতে অত্যন্ত জরুরী ভিত্তিতে ২০ ফেব্রুয়ারি রাতেই নবাবপুরস্থ আওয়ামী মুসলিম লীগ অফিসে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্মপরিষদের বৈঠক আহ্বান করা হয়। সেদিনের সেই বৈঠকে শীর্ষস্থানীয় অধিকাংশ নেতাই ছিলেন অনুপস্থিত। শেখ মুজিবুর রহমান জেলে, মওলানা ভাসানী টাঙ্গাইলে, অন্যান্য দলের নেতৃবৃন্দ আত্মগোপন অবস্থায়। বৈঠকে ‘১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হবে না’ প্রশ্নে ভোটাভোটি হলে ১৪- ৪ ভোটে প্রস্তাবটি পাশ হয়।২১ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ছাত্ররা জমায়েত হতে শুরু করে। বেলা ১১টার (মতান্তরে ১১.৩০) দিকে আমতলায় (মতান্তরে বেলতলায়) সভা শুরু হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন গাজীউল হক। ১৪৪ ধারা ভঙ্গের পক্ষে বিপক্ষে বক্তব্য রাখেন শামসুল হক, আব্দুল মতিন, মোহাম্মদ তোয়াহা, কাজী গোলাম মাহবুব, খালেক নেওয়াজ খান আমানুল্লাহ খান প্রমুখ। বক্তৃতা শেষে গাজীউল হক ২০ ফেব্রুয়ারি সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত অগ্রাহ্য করে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন। তারপর মেডিকেল কলেজ পার হলে কলেজ হোস্টেলের দিকে এগুতে শুরু করলে পুলিশ মিছিলে লাঠি চার্জ শুরু করে। পুলিশের সাথে শুরু হয় ছাত্র জনতার খণ্ডযুদ্ধ। এরপর পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছাড়লে ছাত্ররা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ছাত্রাবাস প্রাঙ্গণে ঢুকে পড়ে। এরপর ছাত্র-জনতা পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের দিকে অগ্রসর হবার চেষ্টা করলে পুলিশ বেপরোয়া হয়ে ওঠে। ‘লাঠি চার্জ কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে থাকলে ছাত্র-জনতাও ইটপাটকেল ছুড়তে শুরু করে। এভাবে পুলিশ ছাত্র-জনতা খণ্ডযুদ্ধ বিকেল পর্যন্ত চলে। এরপর বিকেল ৩.১০ (মতান্তরে ৩টা) মিনিটে পুলিশ প্রথম গুলিবর্ষণ করে। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বারান্দায় গুলিবিদ্ধ হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবুল বরকত।” বরকতের তলপেটে গুলি লাগে। প্রচুর রক্তক্ষরণের পর বরকত হাসপাতালেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। এরপর গুলিবিদ্ধ হন রফিকউদ্দিন। রফিকের মৃত্যু আরও মর্মান্তিক। পুলিশ সরাসরি রফিকের মাথায় গুলী করে। এতে করে মাথার সমস্ত মগজ রাস্তায় ছড়িয়ে পড়ে। তারপর গুলিবিদ্ধ হন জব্বার। তার তলপেটে (মতান্তরে হাটুতে) গুলি লাগে এবং সাথে সাথেই মৃত্যু ঘটে। ২১ ফেব্রুয়ারিতেই পুলিশের গুলিতে শহীদ হন চার জন।” এদের তিন জন হলেন বরকত, রফিক ও জব্বার। অপর জনের নাম জানা যায়নি। কারণ সেই লাশটি পুলিশ গুম করে। ২১ ফেব্রুয়ারি ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে ঢাকার ছাত্র-জনতা ক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং রাস্তায় রাস্তায়, “রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’, কসাই মুসলিম লীগ সরকার ধ্বংস হউক’ শ্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। শুধু ছাত্র জনতাই নয় সচিবালয়ের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীরাও অফিস ত্যাগ করে রাস্তায় নেমে আসে।

ঝ•তীব্র আন্দোলন এবং ভাষা শহীদের রক্তের বিনিময়ে মিলল   ভাষার স্বীকৃতিঃ

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে ঢাকা শহর যখন রণক্ষেত্র তখন বঙ্গীয় আইন পরিষদে অধিবেশন চলছিল। পুলিশের গুলিতে ছাত্র হত্যার খবর তখন পরিষদে এসে পৌঁছে। ছাত্র হত্যার এই সংবাদ মনোরঞ্জন ধর ও গোবিন্দ লাল ব্যানার্জি পরিষদে নিয়ে এসেছিলেন। ২১ ফেব্রুয়ারি ৩-৩০ মিটিটে পরিষদের অধিবেশন শুরু হলে বিরোধী দলীয় সদস্যরা উত্তেজিত হয়ে ওঠেন এবং ছাত্র হত্যার জবাব দাবি করেন। সরকার দলীয় সদস্য মওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ ছাত্রহত্যার তীব্র প্রতিবাদ করেন এবং পরিষদ মূলতবী ঘোষণার দাবি জানান। ২২ ফেব্রুয়ারির জানাযায় এম আর আখতার মুকুল, আওয়ামী মুসলিম লীগের তৎকালীন সভাপতি মওলানা ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক, পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য মওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশসহ বেশ ক’জন এম, এল, এ. এবং একদল অধ্যাপক ও ডাক্তার যোগদান করেন। গায়েবানা জানাযার পরপরই কয়েকটি বাশের মাথায় ভাষা শহীদদের রক্তাক্ত জামা কাপড় বেঁধে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে শুরু হয় জঙ্গী মিছিল। মিছিলটি কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে শহরের বিভিন্ন দিকে অগ্রসর হতে থাকে।রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’, ‘খুনি নূরুল আমীনের কল্লা চাই’, “জালেম সরকারের পদত্যাগ চাই’, ‘শহীদের রক্ত বৃথা যেতে দেব না’-সম্বলিত স্লোগানে ঢাকা শহর মুখরিত হয়ে ওঠে। ছাত্র-জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে সরকার সমর্থিত পত্রিকা মর্নিং নিউজ ও সংবাদ অফিসে আগুন লাগিয়ে দেয়। টহলরত পুলিশ ও পাকিস্তানী সৈন্যরা আবারও মিছিলের ওপর বেপরোয়া লাঠিচার্জ ও গুলীবর্ষণ করে। এতে শহীদ হন সফিউর রহমান, আব্দুল আউয়াল, আব্দুস সালাম, ওলিউল্লাহ (মতান্তরে ওহিউল্লাহ) প্রমুখপুলিশের গুলিতে আবারও ছাত্র-জনতা হত্যার সংবাদ চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে ঢাকার বিশ্ষুদ্ধ জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং প্রাদেশিক আইন পরিষদ ভবন ঘিরে ফেলে। সে সময় (বিকেল ৩টা) পরিষদের অধিবেশন চলছিল। বিরোধী দলীয় সদস্যরা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব পেশ করেন। সরকার দলীয় বেশ কিছু সদস্য তা সমর্থন করেন। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়েই নুরুল আমীন সরকার বাংলাকে প্রদেশের সরকারী ভাষা হিসেবে গ্রহণ করে এবং বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব গ্রহণ করে।

ঞ• ভাষা শহীদদের স্মরনে শহীদ  মিনার নির্মাণঃ

বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে ২২ ফেব্রুয়ারি রাতেই মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা গুলীবর্ষণের জায়গায় শহীদ মিনার নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং সেই রাতেই মাদারীপুরের তৎকালীন মেডিকেল ছাত্র গোলাম মওলা (সহ-সভাপতি, মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদ), নওগাঁর মঞ্জুর হোসেনের নেতৃত্বে নির্মিত হয় শহীদ মিনার। সকাল হতে হতেই শহীদ মিনার নির্মাণের খবর সারা শহরে ছড়িয়ে পড়লে দলে দলে শিশু কিশোর যুবক বৃদ্ধ সবাই এসে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন শুরু করে। ফলে মেডিকেল কলেজ চতুবর পরিণত হয় এক পূণ্যভূমিতেে।উল্লেখ্য ২১ ফেব্রুয়ারি রাতেই রাজশাহীতে ছাত্র হত্যার খবর পৌছানো মাত্র ছাত্ররা এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং ২১ তারিখ রাতেই রাজশাহী কলেজের নিউ মুসলিম হোস্টেলের অভ্যন্তরে একটি শহীদ মিনার নির্মাণ করে।” অনেকে মনে করেন এটিই ছিল বাংলাদেশে প্রথম শহীদ মিনার। যদিও ২২ ফেব্রুয়ারি সকালে পুলিশ বাহিনী শহীদ মিনারটি ভেঙ্গে ফেলে এবং শহীদ মিনারের ইটগুলো গাড়িতে করে নিয়ে যায়।

ট•এক নজরে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও শেখ মুজিবঃ

আমরা আগেই দেখেছি যে, পাকিস্তান সৃষ্টির পরপরই একজন তুখোড় ছাত্রনেতা হিসেবে শেখ মুজিব সরকার বিরোধী আন্দোলনে অবতীর্ণ হন। গণতান্ত্রিক যুবলীগ, পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ, আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রভৃতি গঠনের মধ্য দিয়ে ভাষা আন্দোলনসহ বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান করেন। এজন্য তিনি মুসলিম লীগ সরকারের রোধানলে পড়েন এবং বার বার কারারুদ্ধ হন। সর্বশেষ জননিরাপত্তা আইনে তিনি ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারি গ্রেফতার হন। এরপর দুই বছরের বেশি সময় তিনি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক থাকেন। বেশ কয়েক মাস ধরে তখন তিনি হৃদরোগে ভুগছিলেন। অসুস্থতার কারণে ১৯৫২ সালে ৮ ফেব্রুয়ারি শেখ মুজিব ও মহিউদ্দিন আহমাদকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায়ও মুজিব চুপ করে বসে থাকেননি, ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে প্রতি নিয়তই খোঁজ খবর নিতেন। আলি আহাদ প্রমুখ নেতৃবৃন্দের সাথে তিনি ভাষা আন্দোলন নিয়ে কয়েক দফা আলোচনা করেন এবং সে সম্পর্কে তাদের দিক নির্দেশনাও দেন। সে সময় তিনি তাদের আরও জানান যে, ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি ভাষা আন্দোলনের সপক্ষে আমরণ অনশন শুরু করবেন। এই অনশনের কথা জানতে পেরে সরকার শেখ মুজিবুর রহমানকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা নিরাপদ মনে না করে ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাক কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ফরিদপুর জেলা কারাগারে স্থানান্ত রিত করে। ফরিদপুর যাওয়ার পথে নারায়ণগঞ্জ স্টিমার ঘাটে পুলিশের বাধা অতিক্রম করে সমবেত ছাত্র-জনতার উদ্দেশে তিনি এক জ্বালাময়ী বক্তৃতা দেন। সেখানে তিনি বলেন “একুশে ফেব্রুয়ারি এসেম্বলি বসবে, এম.এল.এ দের কাছ থেকে রাষ্ট্রভাষার বাংলার পক্ষে দস্তখত আদায় করবে।শেখ মুজিবের স্টিমার ঘাটে সেদিনের সেই ঐতিহাসিক ঘোষণা ভাষা আন্দোলনে নতুন মাত্র যোগ করে। এরপর ফরিদপুর জেলে ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি সকল রাজবন্দীদের মুক্তিসহ ভাষার দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করেন। বরিশালের মহিউদ্দিন আহম্মদও মুজিবের সাথে অনশন শুরু করেন। দীর্ঘ কারাবাস ও অনশনের কারণে এ সময় শেখ মুজিব ও মহিউদ্দিন আহম্মেদের স্বাস্থ্যের মারাত্মক অবনতি ঘটে। ১৭ ফেব্রুয়ারি সাপ্তাহিক ইত্তেফাক’ পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয় ।বিগত ১৫ ফেব্রুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমান ও মহিউদ্দিন আহম্মদকে ঢাকা জেল হইতে অপসারণ করা হইয়াছে বলিয়া খবর রটিয়াছে । আরো প্রকাশ তারা উভয়েই নাকি ১৬ ফেব্রুয়ারি হইতে অনশন শুরু করিয়াছেন। শেখ মুজিবুর রহমান ও মহিউদ্দিনের স্বাস্থ্যের অবস্থা খুবই খারাপ, তারা অতিমাত্রায় দুর্বল হইয়া পড়িয়াছেন। মহিউদ্দিনের নাক হইতে নাকি রক্ত ঝরিতেছে।”

মাওলানা ভাসানীসহ বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মী, ছাত্রনেতা, যুবনেতা শিক্ষক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীগণ এই দুই নেতার দীর্ঘ কারাবাস ও ভগ্ন স্বাস্থ্যের জন্য গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং শেখ মুজিব, মহিউদ্দিনসহ সকল কারাবন্দীর আশু মুক্তি দাবি করেন। মওলানা ভাসানী এসময় মানবিক কারণে শেখ মুজিব ও মহিউদ্দিনের মুক্তির আবেদন জানিয়ে একটি পথক বিবৃতিও দেন। এছাড়াও ২৩ ফেব্রুয়ারি তিনি শেখ মুজিব ও মহিউদ্দিনের প্রতি অনশন ভঙ্গ করার আবেদন জানিয়ে এক তারবার্তা প্রেরণ করেন। উক্ত বার্তায় তিনি বলেন যে, বর্তমান অবস্থায় তাদের বেঁচে থাকার প্রয়োজন রয়েছে। এভাবে সারা প্রদেশ ব্যাপী শেখ মুজিবের মুক্তির দাবিতে আন্দোলন জোরদার হতে থাকলে সরকার শেষ পর্যন্ত জনদাবির কাছে মাথা নত করে এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি শেখ মুজিবকে মুক্তি দেয়। জেলখানা থেকে মুক্ত হয়ে সাথে সাথেই মুজিব ঢাকার আওয়ামী মুসলিম লীগ অফিসে এক তার বার্তায় ২১ ফেব্রুয়ারির মর্মান্তিক ঘটনার জন্য গভীর দুঃখ প্রকাশ করেন। দীর্ঘ কারাবাস, রোগভোগের কারণে সেসময় তাকে গ্রামের বাড়ি টুঙ্গি পাড়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রায়

এক মাস চিকিৎসার পর তিনি সুস্থ হয়ে ওঠেন এবং ঢাকায় ফিরে এসে অসমাপ্ত ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান করেন। সর্বশেষে বলতে চাই মায়ের ভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে অসংখ্য তাজা প্রাণ ঝরে গিয়েছিল।ভাষা রক্ষার এই আন্দোলনে অংশগ্রহন কারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল ভাষা শহীদদের বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি।

(তথ্য সহযোগিতা: ভাষা আন্দোলনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকা-  ড. অজিত কুমার দাস,

ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস- রফিকুজ্জামান হূমায়ুন,

ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ও শেখ মুজিব- শহীদুল হক খান,

পূর্ব বাংলার ভাষা আন্দোলন ও তৎকালীন রাজনীতি- বদর উদ্দিন উমর,

ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধীনতা- এম আর আখতার মুকুল,

ভাষা আন্দোলন: ইতিহাস ও তাৎপর্য- আহমদ রফিক,

দেশ ভাগের গল্প- হাসান আজিজুল হক

 

লেখক ও কলামিস্ট-ফিরোজ আলম,

বিভাগীয় প্রধান,(অনার্স,এম.এ শাখা) ,আয়েশা (রা:) মহিলা কামিল ( অনার্স,এম.এ) মাদ্রাসা, সদর, লক্ষীপুর ।

সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক,

কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি ও সাধারন সম্পাদক,লক্ষীপুর জেলা শাখা,বিএমজিটিএ


Print Friendly, PDF & Email