মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৯, ২০২১



গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত

বিশ্ব শিক্ষক দিবস: আমাদের প্রত্যাশা

Oh Teacher! you are a maker of man.
Our parents gave us life and it was you who taught us how to live it. You introduced honesty, integrity, and passion to our character.
জাতি গড়ার কারিগরের উপাধিই শিক্ষক। তাইতো সবাই  পথপ্রদর্শক,দর্শন তত্ত্বের একজন মস্ত বড় পন্ডিত  বলে শিক্ষকদের শুধু শ্রদ্ধার পাত্র করে রাখেন। কিন্তু এই শিক্ষকদের ভাতে নয় সন্মানের মারার কথাও আজকাল বঞ্চিত অবহেলিত শিক্ষকদের মুখে শোনা যায়।
গ্রিক দার্শনিক অ্যারিস্টটল তাই বলেছেন, “যাঁরা শিশুদের শিক্ষাদানে ব্রতী তাঁরা অবিভাবকদের থেকেও অধিক সম্মানীয়। পিতামাতা আমাদের জীবনদান করেন ঠিকই। শিক্ষকরা সেই জীবনকে সুন্দর ভাবে গড়ে তুলতে সাহায্য করেন।”অথচ আজ সন্মানীয়রা থাকেন স্বপ্নহীন,বঞ্চনার লাগাম পরিহিত অসন্মানে।সরকারি পিয়নের তুলনায় ও আজ তারা অবহেলিত।দু:স্বপ্নের  বেড়াজালে আবদ্ধ সমাজের অনেকটাই নিগৃহীত প্রাণীই হল আজকের শিক্ষক। এদিকে প্রায় দেড় বছর পর করোনার ভয়াবহতা জয় করে ধূসর শিক্ষাঙ্গন আবারো প্রাণের মেলায় জমে উঠেছে । শিক্ষকরা জাতি গড়ার কারিগর করোনায় আঠারো মাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ  থেকে আবারো এদেশের  অভিভবক, এদেশের আপাম জনসাধারন এবং সরকারকে বুঝিয়ে গেল।সবাই বুঝল তারপর ও শিক্ষককে তার জাতীয়করন, সন্মানজনক বাড়ি ভাড়া, শতভাগ উৎসব ভাতা সহ প্রয়োজনীয় সুবিধা থেকে বঞ্চিত করল একদল জ্ঞান পাপী সম্প্রদায়। এত সব বঞ্চনার কষ্ট বুকে চেপে রাখতে না রাখতেই  আমাদের  শিক্ষকদের সামনে  ৫ ই অক্টোবর বিশ্ব শিক্ষক দিবসের উপস্থিতি। এ দিবস ঘিরে কতই না স্বপ্ন আঁকে এদেশের শিক্ষক সমাজ।হয়ত জাতীয়করনের স্বপ্ন অনেক দূর,তারপরও আশায় বুক বাঁধে এদেশের ৩৯ হাজার এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক সমাজ। তারা স্বপ্ন দেখে শতভাগ উৎসব ভাতা নিয়ে পরিবার পরিজনের সাথে  একটি রঙ্গিন ঈদ কাটানোর। তারা স্বপ্ন দেখে সন্মানজনক বাড়ি ভাড়া পেয়ে একটি স্বাধীন রুচিশীল  জীবনের।
 #বিশ্ব শিক্ষক দিবসের  প্রেক্ষাপট:
১৯৬৬ সালে জাতিসংঘের উদ্যোগে এবং ইউনেস্কোর তত্বাবধানে ফ্রান্সের প্যারিসে অনুষ্ঠিত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষক সংগঠনের প্রতিনিধিদের এক সভায় প্রতি বছর ০৫ অক্টোবর বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
ইউনেস্কো দিবসটি উপলক্ষে প্রতি বছর ভিন্ন ভিন্ন প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করে থাকে। এবার ২০২১ইং শিক্ষক দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে “
‘Teachers at the Heart of the Education Recovery’ বা শিক্ষকই শিক্ষা-পুনরদ্ধারের কেন্দ্রবিন্দুতে।”
##বিশ্ব শিক্ষক দিবস কেন পালিত হয়?
শিক্ষা ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ সারা পৃথিবী ব্যপী বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালন করা হয়।
বিশ্বের ১০০টি দেশে এই দিবসটি পালিত হয়ে থাকে। এই দিবসটি পালনে এডুকেশন ইন্টারন্যাশনাল (Education International – EI) ও তার সহযোগী ৪০১টি সদস্য সংগঠন মূল ভূমিকা রাখে। ১৯৯৫ সাল থেকে প্রতি বছর ৫ অক্টোবর তারিখ বিশ্ব ব্যাপী পালিত হয়ে থাকে বিশ্ব শিক্ষক দিবস। ২০০৩ সালে ১৯ জানুয়ারি বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজকে যথাযোগ্য মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করার অঙ্গীকার নিয়ে তৎকালীন সরকার এ দিবসটি চালু করে। অথচ আজ ১৯ বছর পার হয়ে গেল।তৎকালীন সরকারের  কত কিছুই  এসময় পরিবর্তন হল।রাস্তাঘাট বদলে গেল।ফ্লাইওভার দৃশ্যমান হল।পদ্মা সেতু আজ স্বপ্ন নয় ;দৃশ্যমান বাস্তব সারা পৃথিবী দেখলো,কত স্থাপনার নাম নতুন হল।কত মানুষের ভাগ্যের চাকা পরিবর্তন হল।কত অযোগ্য লোক মন্ত্রী হল।কত গুনীজন যথাযোগ্য মর্যাদা পেল।শুধু শিক্ষকদের যথাযোগ্য মর্যাদায় প্রতিষ্ঠা করতে হবে এটিই শুধু বন্ধ রইল।শিক্ষকদের লালিত স্বপ্নের ফুল আকাঙ্খিত জাতীয়করনের স্বপ্ন এখনো অধরাই রয়ে গেল।তাই এ দিবসটি শিক্ষকদের অবদানকে স্মরণ করার জন্য পালন করা হয়।
##শিক্ষক দিবসে এ বছর  শিক্ষকদের প্রত্যাশা
ক• রাষ্ট্র পরিচালনায়  বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে ২০% শিক্ষকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা। অথচ বর্তমানে ৫০% এর  ও বেশি ব্যবসায়ী জাতীয় সংসদে রাজত্ব করছেন।
খ•কোন অজুহাত নয় বরং এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের যৌক্তিক দাবি জাতীয়করন ঘোষনা করতে হবে।
গ•জাতীয় বাজেটে শিক্ষা খাতে ইউনেস্কোর নীতিমালা মোতাবেক  জিডিপির ৬ থেকে ৮% বরাদ্দ নিশ্চিত করা।  যা বর্তমানে  জিডিপির ২.৫% এর কাছাকাছি।
## বিশ্ব শিক্ষক দিবসে মাদ্রাসা  শিক্ষকদের এবছর প্রত্যাশা:
এক. মাদ্রাসা সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করন করতে হবে।
দুই• ২০১৯সালের ২৩ নভেম্বরের সংশোধিত মাদ্রাসা জনবল কাঠামো ও এমপিও  নীতিমালায়  বৈষম্য দূর করার লক্ষ্যে সকল  পর্যায়ের মাদ্রাসার প্রশাসনিক (অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, সুপার, সহ–সুপার) পদে নিয়োগে প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা সংশোধন করে সবার অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে।
 
গ•আলিম মাদ্রাসায় জ্যেষ্ঠ প্রভাষক পদ বিলুপ্ত করে সহকারী অধ্যাপক পদ বহাল রাখতে হবে।
 
ঘ• নবম গ্রেডে নিয়োগ প্রাপ্ত সকল  প্রভাষকদের ৮ বছর চাকরিকাল পূর্ন হওয়া সাপেক্ষে সহকারী অধ্যাপক পদ নিশ্চিত করতে ঘৃন্য অনুপাত প্রথা বাতিল করতে হবে এবং   পর্যায়ক্রমে সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদে পদোন্নতির সুযোগ রাখতে হবে।
ঙ• মাদ্রাসার এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের সরকারি নিয়মে  শতভাগ উৎসব ভাতা, বাড়িভাড়া,চিকিৎসাভাতা এবং অন্যান্য সুবিধা  প্রদান করতে হবে।
চ• সরকারি নিয়ম মেনে ঐচ্ছিক বদলিপ্রথা চালু করতে হবে।
ছ• মাদ্রাসা থেকে লেখাপড়া সম্পূর্ন করা  ছাত্রছাত্রীদেরকে মাদ্রাসায়  চাকুরি করার সুযোগ এবং পদান্নতি পাবার অধিকার  নিশ্চিত করতে হবে।
জ• মাদ্রাসার ইবতেদায়ী শিক্ষার  মানোন্নয়নে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মত সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে এবং মাদ্রাসার জরাজীর্ণ  উচ্চ শিক্ষার মানোন্নয়ন নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করতে হবে।
ঝ• গ্রন্থাগারিক ও সহ–গ্রন্থাগারিক পদে জেনারেল প্রার্থীর আবেদনের সুযোগ রাখতে হবে।
ঞ. এরাবিক বিষয়ের পাশাপাশি মাদ্রাসায় চাকুরী উপযোগী জেনারেল এবং বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি চালু করতে হবে।
ট• মাদ্রাসার সকল স্তরের শিক্ষকদের জন্য স্তর  এবং পদ মর্যাদা অনুযায়ী সরকারি নিয়মে গৃহ ঋণ পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।
ঠ•সরকারি নিয়মে চাকুরীকাল  শেষে পেনশন এর ব্যবস্থা করতে  করতে হবে।
**শিক্ষক অধিকারের প্রেক্ষাপট:
বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষকদের অধিকার , মর্যাদার এবং কর্তব্যর  প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ আলাদা। প্রায় ১৯০ বছরের বৃটিশ শাসনামলে  এবং  প্রায় ২৪ বছরের পাকিস্তানী শাসনকালে   শিক্ষকের মর্যাদার তেমন উচ্চাসিন হয়নি বললেই চলে। স্বাধীনতার পর থেকে আজ অবধি গত ৪৯ বছরে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা এবং শিক্ষকের মর্যাদা অনেকটাই  উচ্চাসীন। বাংলাদেশে এক সময় শিক্ষকদের কোন বেতনই ছিলনা। ঐসময়  শিক্ষক বলতে বুঝাতো অতিশয় ভদ্র,চোখে ভাঙা  চশমা,পরনে কম দামী কুচকানো পাজামা পাঞ্জাবি কিংবা লুঙ্গি, পায়ে সাধারন জুতা কিংবা সেন্ডেল,হাতে সাধারন ছাতা কিংবা তালি দেওয়া ছাতা।  ১৯৪৪ সালে ব্রিটিশ সরকার শিক্ষকদের জন্য  মাসিক পাঁচ (০৫) টাকা ভাতা চালু করে ।সেই  থেকে শিক্ষকদের বেতন -ভাতা শুরু।
স্বাধীনতা পরবর্তী শেখ মুজিবুর রহমান  সরকার  এক সাথে ৩৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ০১ লক্ষ ৬২ হাজার শিক্ষকের চাকুরী জাতীয়করণ করেছিলেন। ব্যস, তখন থেকেই শুরু। তারপর সরকারিকরন, জাতীয়করন,এমপিওভুক্তির কার্যক্রম। বিশাল পথ অতিক্রম করে শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যপক পরিবর্তন ঘটলেও  এখনো শিক্ষকদের অধিকার ও কর্তব্য প্রশ্নে শিক্ষা ব্যবস্থায় আজও  নানাবিধ সমস্যায় ভরপুর।
 সরকারী স্কুল,মাদ্রাসা, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পদমর্যাদা এবং সম্মান অনেকটা উচ্চাসীন হলে ও  বঞ্চিত এমপিওভুক্ত শিক্ষা খাত। যদি ও জাতীয় অর্থনীতে তাদের ভূমিকাই মূখ্য। তাই শিক্ষার মানোন্নয়নে,শিক্ষকদের অধিকার ও মর্যাদার কথা বিবেচনা করে ঐতিহাসিক মুজিব জন্মশতবর্ষেই জাতীয়করনের স্বপ্ন দেখেছিল এদেশের এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা।
প্রতি বছরের মতো এবারও ৫ অক্টোবর বিশ্ব শিক্ষক দিবস উদ্‌যাপিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশসহ বিশ্বের  প্রায় একশত  দেশে। পৃথিবীর সকল শিক্ষকদের অবদানকে স্মরণ করার জন্য জাতিসংঘের অঙ্গসংস্থা ইউনেসকোর ডাকে এ দিবসটি পালন হয়ে থাকে।বিশ্ব শিক্ষক দিবস যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি আমাদের কে স্মরন করিয়ে দেয় তাহলো শিক্ষকদের মর্যাদা। শিক্ষকদের  সবচেয়ে বড় মর্যাদা  ও গৌরব যেটি ,সেটি হলো তারা শিক্ষক ,তারা সকলের স্যার, সকলের গুরুজন,শ্রদ্ধার পাত্র  আলোকিত  আলোর দিশারী  পণ্ডিত মানুষ। তারা  বিদ্যাপীঠে শিক্ষা দান করেন ,জাতি তৈরি করেন ,সঠিক নেতৃত্ব তৈরি করেন  এটাই তাদের মর্যাদা, এটাই তাদের মহত্ব । তাই এবারের বিশ্ব শিক্ষক দিবসের  প্রত্যাশা হোক শিক্ষকরা যেন অন্য পেশার  সুযোগ সুবিধার সাথে নিজেদের তুলনা করে নিজেদের দাবি আদায় করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের  ক্লাশ ,লেখাপড়া বন্ধ করে  না দেয়।এমনটি কোন মতেই উচিৎ হবেনা।  কারন  শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ক্ষতি করে দাবি আদায় শিক্ষকদের বৈশিষ্ট্য নয়। সুশিক্ষায় শিক্ষিত শিক্ষকেরা হচ্ছেন মানুষ গড়ার কারিগর।  সরকারেরও উচিত শিক্ষাগুরুদের সন্মানে জাতীয়করনসহ  শিক্ষকদের চাওয়া পাওয়া  সমস্যার সমাধান করা।
##৫ ই অক্টোবর শিক্ষক দিবসে সব শিক্ষকদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি  যারা শিক্ষার্থীদের জন্য শ্রম দিচ্ছেন,আগামির সঠিক নেতৃত্ব তৈরি করছেন নিরলসভাবে ,পাঠ দিচ্ছেন, পথ দেখাচ্ছেন,স্বপ্ন দেখাচ্ছেন আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার কারিগর হতে ,  মানুষের মতো মানুষ হতে।শ্রদ্ধা জানাই আমাদের পাঠশালা, মাদ্রাসা-মক্তব,প্রাক প্রাথমিক,প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সেই শিক্ষাগুরদেরকে যারা অর্থনৈতিক চিন্তা নয়,সামাজিক অবস্থান বিবেচনা নয়  বরং জাতির মেরুদণ্ডকে সোজা করে রাখার নিরলস চেষ্টা করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। তাই  এবারের শিক্ষক দিবসে সকল স্তরের শিক্ষকদের সঠিক  মূল্যায়ন এবং উপযুক্ত বেতন ভাতা, এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করনের জন্য সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাই।
সাথে সাথে শিক্ষক নিয়োগে রাজনৈতিক বিবেচনা বাদ দেওয়া,
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মিনিস্ট্র অডিটের নামে অসাধুচক্রের  লোপাট বন্ধ করা,
,নিয়োগ পেতে Donation  বন্ধ করা এবংচলমান  মেধার ভিত্তিক নিয়োগ দান অব্যাহত রাখা অতিব জরুরি বোধ করি।এমনটি না হলে গরীব  সাধারণ ঘরের মেধাবী যোগ্য প্রার্থীরা অধিকার হারাবে সন্দেহ নাই।
অন্যদিকে এবারের বিশ্ব শিক্ষক দিবসে মুজিব শতবর্ষে মুজিবের সোনার বাংলায়  সামাজিক সংকট কাটাতে  এবং শিক্ষা পুনরুদ্ধারে
 সময়োপযোগী ও মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ার অঙ্গীকারে শিক্ষাগুরুদের প্রতি কিছু পরামর্শ উপস্থাপন করলাম।
ক• শিক্ষার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করা:
শিক্ষাদানের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ অতিব জরুরি । কোলাহলপূর্ণ বিশৃঙ্খল পরিবেশ শিক্ষার বিষয় ও শিক্ষক উভয়ের জন্যই ক্ষতিকর।
খ•দেহ-মনের সমন্বিত ভাষায় পাঠ দান করা:
শিক্ষক মহোদয়গনকে অবশ্যই দেহ-মনের সমন্বিত ভাষায় পাঠ দান করা জরুরি। কারণ, এতে আলোচ্য  বিষয়ের গুরুত্ব, মাহাত্ম্য ও প্রকৃতি সম্পর্কে শিক্ষার্থীরা  সঠিক ধারণা লাভে সক্ষম হবে এবং বিষয়টি ছাত্র-ছাত্রীদের  অন্তরে গেঁথে যাবে।
গ•উপস্থাপনায় সাবলীল হওয়া:
শিক্ষার প্রয়োজনে শিক্ষককে অনেক সময় গল্প-ইতিহাস বলতে হয়। তবে সেটির উপস্থাপনা হতে হবে মিষ্টি,সাবলীল  অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে।তাতে শিক্ষার্থীরা অধিক  মনোযোগী হবে  ক্লাসে।
ঘ•ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট প্রশ্ন রাখা:
ক্লাস উপস্থাপনের মাঝখানে ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট প্রশ্ন রাখা অতিব জরুরি।যেনো তারা প্রশ্ন করতে এবং তার উত্তর খুঁজতে অভ্যস্ত হয়। কেননা নিত্যনতুন প্রশ্ন শিক্ষার্থীকে নিত্যনতুন জ্ঞান অনুসন্ধানে উৎসাহী করে তোলে।
ঙ•আলোচ্য টপিকের গুরুত্ব সম্পর্কে স্পস্ট ধারনা দেওয়া:
আলোচ্য টপিকের গুরুত্ব সম্পর্কে স্পস্ট ধারনা দিলে  শিক্ষার্থীরা  শ্রেণী কক্ষে অনেক বেশি মনোযোগী হবে। মনোযোগ সহকারে   শিক্ষকের আলোচনা শ্রবন করবে।
চ•আগ্রহী শিক্ষার্থী নির্বাচন :
 শিক্ষাদানের সময় আগ্রহী শিক্ষার্থী নির্বাচন করা যেতে পারে । এতে  শেখানো বিষয়টি দ্রুত ও ভালোভাবে বাস্তবায়িত হয়।
ছ•উপমা দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মনোযোগ আকর্ষন করা:
ছাত্র-ছাত্রীদেরকে  কোনো বিষয় স্পষ্ট ভাবে বোঝাতে  উপমা পেশ করা যেতে পারে। কেননা উপমা প্রয়োগে   যে কোনো বিষয় উপলদ্ধি অধিক  সহজ হয়ে যায়।
জ•ছাত্র-ছাত্রীদেরকে প্রশ্ন করার সুযোগ দেওয়া:
শ্রেণীকক্ষে শিক্ষকের আলোচনা শুনে শিক্ষার্থীর মনে প্রশ্ন জাগতে পারে। এসব প্রশ্নের উত্তর  না পেলে  শিক্ষার্থীর নিকট বিষয়টি অস্পষ্ট থেকে যায়। সেজন্য প্রশ্ন করার সুযোগ পেলে এবং উত্তর পেয়ে গেলে  জ্ঞানার্জনে শিক্ষার্থীরা অধিক  আগ্রহী হবে।
ঝ• প্রাক্টিক্যাল বা প্রয়োগিক শিক্ষার ব্যবস্থা করা :
শিক্ষার সবচেয়ে কার্যকর মাধ্যম হলো প্রাক্টিক্যাল বা প্রয়োগিক শিক্ষা।এতো শিক্ষার্থীর শিক্ষার প্রতি আগ্রহ ও রুচিবোধ তৈরি হয়।
ঞ•  শিক্ষার্থীদের মাঝে  নৈতিক শিক্ষা জাগ্রত করা:
 নৈতিকতা জাগ্রত থাকলে মানুষ নানা অপরাধ থেকে বেঁচে যায় এবং নৈতিকতা হারিয়ে গেলে  মানুষ  অপরাধে জড়িয়ে পড়ে।
মানুষের নৈতিকতা ,বিবেক ও মনুষ্যত্ব জাগ্রত থাকলে শিক্ষার  উদ্দেশ্য সফল হয় ।
ট•রেখাচিত্র/মানচিত্র/চিত্রের সাহায্যে বিষয় বিশ্লেষন করা :
 শ্রোতা ও শিক্ষার্থীর স্মৃতিতে আলোচ্য টপিক  রেখাপাত করতে রেখাচিত্র/মানচিত্র/চিত্রের সাহায্যে বিষয় বিশ্লেষন করা  যেতে পারে। এতে আলোচ্য টপিকটি অধিকতর সহজ হবে।
ঠ•বেশি বেশি পড়তে  উদ্বুদ্ধকরণ :
 শিক্ষার্থীদের মেধা ও স্মৃতিশক্তির ওপর নির্ভর না করে বার বার পাঠ করতে উদ্বুদ্ধ করা জরুরি।কারন  বার বার পাঠ করলে কঠিন বিষয় ও সহজে  আয়ত্ব করা যায়।
ড•মুক্ত আলোচনা ও মতবিনিময়ের মাধ্যমে শিক্ষাদান  চালু রাখা:
মুক্ত আলোচনা ও মতবিনিময়ের মা
ধ্যমে বহু জটিল ও দুর্বোধ্য বিষয় সহজ হয়ে যায় এবং উত্তম সমাধান পাওয়া যায়।
ঢ•শুদ্ধিকরনের  মাধ্যমে শিক্ষাদান :
ভুল সংশোধনের মাধ্যমে শুদ্ধিকরন প্রক্রিয়ায়  শিক্ষার্থীদের শিক্ষা দেওয়া যেতে পারে।
সবশেষে বলতে চাই,মুজিব জন্মশতবর্ষেই দূর হোক শিক্ষকদের সব বঞ্চনা- গ্লানি,জাগ্রত হোক সরকারের ঘুমন্ত বিবেক,উদিত হোক সভ্যতার নতুন সূর্য,হাসি ফুটুক এদেশের অবহেলিত  সকল শিক্ষকের মুখে।
ফিরোজ আলম,বিভাগীয় প্রধান,আয়েশা ( রা:) মহিলা অনার্স কামিল মাদ্রাসা, সদর, লক্ষীপুর।
প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক,কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী কমিটি এবং সাধারন সম্পাদক লক্ষীপুর জেলা শাখা,বিএমজিটিএ।
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ

জয় নিতে মরিয়া বাংলাদেশ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে গেছে বাংলাদেশ। এতে প্রতিযোগিতার মূলপর্বে ওঠার সমীকরণটাই কঠিন হয়ে গেছে টাইগারদের জন্য। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে...

পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, আসামি আরিফ গ্রেফতার

নওগাঁর মান্দায় এক পঙ্গু পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে ধর্ষণের মামলার আসামি আরিফ হোসেন জয়কে (৩০)...

শুধু বিনোদনই নয় দায়িত্বও রয়েছে সিনেমায়

'এ দেশ তোমার আমার' নিয়ে প্রত্যাশা কেমন। এ বিষয়ে সবার আগে যে কথাটি বলতে চাই,...

বাংলাদেশে সেরা ইস্ট ওয়েস্ট ভার্সিটির

বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণর্ যাঙ্কিং 'এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স-২০২১'-এ বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ইস্ট...

রবিউল আউয়াল মাসের আমাদের শিক্ষা

বছর ঘুরে আবার আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছে রবিউল আউয়াল মাস। ইসলামে এটি গুরুত্বপূর্ণ ও...

ওমানের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ, জয়ের বিকল্প নেই

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে গেছে বাংলাদেশ। এতে প্রতিযোগিতার মূলপর্বে...