বাল্য বিয়ে না করায় ৫লাখ টাকা চাঁদা দাবি

শেয়ার

রামগঞ্জ:
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে বাল্যবিয়ে না করায় বরের ভগ্নিপতি মোঃ ফিরোজ আলমের কাছ থেকে ৫লাখ টাকা দাবি করে জোরপূর্বক সাদা স্টাম্পে স্বাক্ষর আদায় করে নিয়েছে কনের পিতা। ঘটনাটি ঘটেছে ৩এপ্রিল সোমবার দিবাগত রাত ১টায় কচুয়া বাজারে। সৃষ্ট ঘটনায় আজ মঙ্গলবার সকালে বর মমিনুল ইসলামের ভগ্নিপতি মোঃ ফিরোজ আলম বাদী হয়ে রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। এ সংবাদ উপজেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে এলাকাব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
¯’ানীয় সূত্রে জানাযায়, গত ২৭ মার্চ উপজেলার ৩নং ভাদুর ইউপির হানুবাইশ গ্রামের ফয়েজবক্স পাটোয়ারী বাড়ির মোঃ জামাল হোসেনের মেয়ে ও দরবেশপুর উ”চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার পলির সাথে পার্শ্ববর্তী চাটখিল উপজেলার ৩নং পরকোট ইউনিয়নের পশ্চিম শোশালিয় গ্রামের চাঁন মিয়া পাটোয়ারী বাড়ির মৃত আজিজ উল্লার প্রবাসী ছেলে মোঃ মমিনুল ইসলামের সাথে রামগঞ্জ বিয়ের দিন তারিখ ঠিক হয়। কিš‘ু বাল্য বিয়ে হ”েছ এমন সংবাদ পেয়ে রামগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন বিয়ে হবেনা মর্মে সুমাইয়ার গার্ডিয়ানকে জানিয়ে দেয়। সেই মোতাবেক ওই বিয়ে ভেঙ্গে যায়। পরে এই ঘটনার জের ধরে মেয়ের বাবা মোঃ জামাল জোর পূর্বক বাধ্যতামূলক সুমাইয়াকে বিয়ে করতে হবে মর্মে মেয়ের পিতা ¯’ানীয় পার্শ্ববর্তী আলীপুর গ্রামের মেম্বার মোঃ ইলিয়াস, দরবেশ ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ ইসমাইলসহ ৩০/৩৫ জন ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে হুমকী ধমকী সহ বাল্য বিয়ে না করলে ৫লাখ টাকা জরিমানা দাবি করেন। এক পর্যায়ে ৩ এপ্রিল দিবাগত রাত ১১টায় কচুয়া বাজার ডেকোরেটরের দোকানে জোর পূর্বক আটক করে বরের ভগ্নিপতি মোঃ ফিরোজ আলমের কাছ থেকে ৩০০টাকার সাদা স্টাম্পে সই-সাক্ষর নিয়ে যায়।
আলীপুরের মোঃ ইলিয়াছ মেম্বার জানান, দরবেশপুর ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ  ইসমাইল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়েছে,আমি এই ঘটনার সাথে জড়িত নই।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু ইউসুফ জানান, এই বাল্য বিয়ের বিষয়ে জেলা প্রসাশক মহোদয় অবগত আছেন। এজন্য বারংবার মেয়ের পিতা ও মেম্বারদের সতর্ক করার পরেও জোর করে ব্লাংক স্টাম্পে সাক্ষর আদায় বিধিলংঘন করা হয়েছে। এজন্য রামগঞ্জ থানার ওসিকে বিধি মোতাবেক ব্যব¯’া নিতে বলা হয়েছে।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.