নতুন বিশ্ব সুন্দরীর পাঁচ কথা

শেয়ার

 

অনলাইন ডেস্ক:

ইরিস একটি ফুলের নাম। ফরাসি ললনা ইরিস মিতেন ফুলের মতোই সুন্দর। তারই স্বীকৃতি মিলেছে এবারের মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগে। সেরা সুন্দরীর মুকুট উঠেছে ইরিসের মাথায়।

ইরিস মিতেনের জন্ম ১৯৯৩ সালের ২৫ জানুয়ারি। ফ্রান্সের ছোট্ট শহর লিলেতে। দন্ত্যচিকিৎসাশাস্ত্রে পড়াশোনা করেছেন মিতেন। এখন হয়ে গেলেন সৌন্দর্যের অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব। তবু দাঁতের, মুখের স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করে যেতে চান। এর বাইরে তার আরো কিছু লক্ষ্য আছে। তার কিছু প্রিয় বিষয়ও আছে। চলুন এমন পাঁচটি বিষয় জেনে নেই।

খেতে নেই মানা!

মুটিয়ে যাওয়ার ভয়ে অনেক মডেল খাবার কম খান। মেনে চলেন নিয়ন্ত্রিত ডায়েট চার্ট বা খাদ্যতালিকা। কিন্তু ইরিসের কাছে স্বাস্থ্য ও খাবার দুটোই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি যে ভোজনরসিক, এই ধরনের কিছু ছবি এসেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। পিৎজা, আইসক্রিম এবং সুশি খেতে ভালোবাসেন। তবে মুটিয়েও যেতে চান না ইরিস। শরীরের গঠন ঠিক রাখতে সাঁতার, খেলাধুলা আর শরীরচর্চায়ও নিয়মিত সময় দেন।

রাঁধতেও জানেন…

ইরিস শুধু খেতে নয় খাওয়াতেও ভালোবাসেন। নতুন কোনো খাবার তৈরিতে তার বিপুল আগ্রহ আছে। রান্নাঘর তাঁর পছন্দের জায়গা। ফরাসি খাবারের উপর নানারকম নিরীক্ষা করে থাকেন। সম্প্রতি শেফ ফেডরিক অন্টনের সঙ্গে কুকিং সেশন উপভোগের ছবি প্রকাশিত হয়েছে। হাস্যরসের সঙ্গে মিস ইউনিভার্স ইরিস এই অনুষ্ঠানের উপস্থাপক স্টিভ হার্ভেকে খাবারের নিমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

দুই পা ফেলিয়া

ইরিস মিতেন ঘরকুনো নন। ঘুরতে দারুণ পছন্দ করেন। বিশ্বজুড়েই তার পদচারণা। আরব আমিরাত, বেলজিয়াম, ইতালির মতো দেশ ঘুরেছেন। গিয়েছেন চীনে। সেখানে মহাপ্রাচীরের সামনে ছবিও রয়েছে তার। তবে নিজ দেশের প্যারিসের আইফেল টাওয়ারই তার সবচেয়ে প্রিয় দর্শনীয় স্থান।

উড়ালিয়া দিনগুলি

রোমাঞ্চজগতের হাতছানিও দারুণ টানে মিতেনকে। তার জন্যে প্রায়ই ছুটে যান উত্তর ফ্রান্সে নিজের জন্মভূমিতে। করেন স্কাই ডাইভিং।

দন্ত্যশাস্ত্রেই চোখ

দন্ত্যচিকিৎসাশাস্ত্রে পাঠ নিয়েছেন ইরিস। সৌন্দর্য্যরে ভূবন জয়ের পরও তা ভুলে থাকতে চান না। দাঁত ও মুখের স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক কার্যক্রমে যুক্ত থাকতে চান। এ নিয়ে কাজ করতে চান পৃথিবীজোড়া। এরইমধ্যে সেই আগ্রহের কথা জানিয়েছেন সবাইকে।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.