জিপি অ্যাক্সেলেরেটর প্রোগ্রামের সেরা ৫ স্টার্টআপ

পল্লী নিউজ আইসিটি ডেস্ক:

জিপি অ্যাক্সেলেটর প্রোগ্রামের দ্বিতীয় ব্যাচের সেরা পাঁচ স্টার্টআপ- বাজঅ্যালী, সোশিয়ান, ক্র্যামস্টেক, ঘুড়ি এবং সিমেড। দ্বিতীয় ব্যাচে অংশ নেয়া স্মার্টআপগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় সেরা স্টার্টআপকে খুঁজে নেয়ার দায়িত্ব যৌথভাবে পালন করে এসডি এশিয়া এবং গ্রামীণফোন।

নির্বাচিত এই প্রকল্পের উদ্যোক্তারা তাদের প্রকল্প বাস্তবায়নে ১১ লাখ টাকা সহ গ্রামীনফোনের প্রধান কার্যালয় ‘জিপি হাউজে’ অফিস স্পেস পান। রোববার গ্রামীনফোনের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জিপি অ্যাক্সেলেরট প্রোগ্রামের ডেমোডে’তে তারা নিজেদের প্রকল্পগুলো উপস্থাপন করেন।

সেরা পাঁচটি প্রকল্পের মধ্যে
ক্র্যামস্টেকঃ  ডাটা অ্যানালিটিক্স প্লাটফর্ম যা অ্যানালিটিকস পাইপলাইন এবং মডেলের মাধ্যমে বড় প্রতিষ্ঠানের অনেক জটিল ডাটার উপাত্ত বের করে আনে। বিজনেস ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করে সার্চ ড্রাইভেন ডেটা অ্যানালিটিকাল প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করছে ক্র্যামস্টেক।আর তাই যারা টেক সম্পর্কে অনেক কম জানেন তারাও ক্র্যামস্টেক ব্যবহার করে ডেটা বিশ্লেষণ করতে পারবেন।

এছাড়া টেকনিক্যাল অভিজ্ঞতা ছাড়াই যে কাউকে বিজনেস ডেটা বিশ্লেষণের কাজ সহজ করে দেয়াটাই ক্র্যামস্টেকের মূল লক্ষ্য। কয়েক ঘণ্টার ডেটা বিশ্লেষণ প্রক্রিয়াকে মাত্র কয়েক সেকেন্ডেই সমাধান করে দিতে সক্ষম ক্র্যামস্টেক।

সোশিয়ানঃ  সোশ্যাল মিডিয়া অ্যানালিটিক্স। এই অ্যানালিটিকস প্লাটফর্ম একটি ব্র্যান্ডকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কি কি আলোচনা হবে তা তুলে আনতে পারে। নিজেদের প্লাটফর্মে ‘বাংলা ভাষার ডাটা অ্যানালাইসিস’ সংযোজন করে অন্য স্টার্টআপের চেয়ে নিজেদের আলাদা করেছে সোশিয়ান। সোশিয়ান প্লাটফর্মটি ৮১টি ভাষার সাপোর্ট দিতে সক্ষম।

যেখানে অন্যরা শুধু ইংরেজি ভাষাই সাপোর্ট দিয়ে আসছে। যদিও সোশিয়ান বর্তমানে শুধু বাংলা এবং আরও কিছু দক্ষিণ এশিয়ার ভাষা নিয়ে কাজ করতে বেশি আগ্রহী।
সি-মেডঃ  খুব কম খরচে ক্লাউড বেসড মেডিক্যাল সার্ভিস প্রদান করে সি-মেড। বাংলাদেশের মানুষের জন্য সহজেই ব্যবহারযোগ্য এ মাধ্যমটি কম খরচে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে পারে। নন-কমিউনেকেবল রোগগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করে যাচ্ছে এই স্টার্টআপটি।

বাজঅ্যালীঃ  এটি মোবাইল মার্কেটিং বিষয়ক সেবা দিয়ে আসছে। মিসড কল মার্কেটিং হচ্ছে বাজঅ্যালীর প্রথম প্রোডাক্ট।বিভিন্ন অ্যানালেটিক্সের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যবসার টার্গেট কাস্টমারকে খুঁজে বের করবে বাজঅ্যালীর সিস্টেম।  আরো কিছু লক্ষ্য পূরণে কাজ করে যাচ্ছে স্টার্টআপটি।

ঘুড়িঃ হোটেল এবং ট্যুর প্যাকেজ থেকে শুরু করে ওয়ান স্টপ ট্রাভেল সলিউশন দিয়ে আসছে ঘুড়ি।  নিজেদের সাইটেই চ্যাট-বটের মাধ্যমেই কাস্টমারদের সেরা প্যাকেজটি নেয়ার সাজেশন দিচ্ছে স্টার্টআপটি।সেলস বাড়াতে এখন মার্কেটিং এবং ক্লায়েন্ট সার্ভিস আরও উন্নত করার চেষ্টা করে যাচ্ছে ঘুড়ি। সেইসাথে বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্ট, ট্যুর অপারেটর এবং বিভিন্ন ধরণের হোটেলের সাথে যোগাযোগে কাজ করছে।

আমন্ত্রিত দেশি বিদেশি বিনিয়োগকারী, প্রোফেশনালস, গ্রামীনফোন এবং এসডি এশিয়ার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সহ আমন্ত্রিতদের সামনে চমৎকার এই আইডিয়াগুলো উপস্থাপন করেন তরুণ উদ্যোক্তারা।