সোমবার, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ,২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় অনুমোদিত, রেজি:নং ৭৮

চেয়ারম্যানের এত ক্ষমতা : হাইকোর্ট

Array

চেয়ারম্যানের এত ক্ষমতা’ -মারপিট করার এখতিয়ার এবং আইন হাতে তুলে নেয়ার ঘটনায় এমন প্রশ্ন তুলেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব এত ক্ষমতা কোথায় পেলেন? মারপিট করার এখতিয়ার কোথায় পেলেন? চেয়ারম্যান কি এতই ক্ষমতাধর যে আইন হাতে তুলে নেবেন? বিষয়টি সহজে ছাড়া হবে না।

গ্রাম্য সালিশে ফতোয়ার নামে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদানের ঘটনায় লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও একই উপজেলার চর মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে বুধবার আদালত এসব কথা বলেন। এ সময় তারা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদালত তাদেরকে আগামী ৯ মার্চ আবারও আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চেয়ারম্যান দাফতরিক দায়িত্ব পালন করেছেন কিনা, সে বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রতিবেদন দিতে বলেন। পাশাপাশি লক্ষ্মীপুরের বিচারিক আদালত থেকে ওই চেয়ারম্যানের নেয়া জামিনের নথিও তলব করা হয়।

হাইকোর্টের বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি একেএম সাহিদুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে এ বিষয়ে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী এসএম রেজাউল করিম। চেয়ারম্যানের পক্ষে শুনানি করেন আবদুর রব চৌধুরী ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পক্ষে শুনানি করেন মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল সোহেল। এছাড়া আদালতে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ এস এম নাজমুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চর মার্টিন ইউনিয়নের গ্রাম্য সালিশে ফতোয়ার নামে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদান সংক্রান্ত ঘটনায় স্বঃপ্রণোদিত রুল দেন হাইকোর্টের এই বেঞ্চ। ওই দিনই এ সংক্রান্ত সংবাদ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন আইনি সেবা দানকারী বেসরকারি সংস্থা ব্লাস্ট-এর আইন উপদেষ্টা ও পরিচালক এস এম রেজাউল করিম আদালতের নজরে আনলে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ রুল জারি করেন।

ফতোয়ার নামে গ্রাম্য সালিশে নারী ও পুরুষকে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদান কেন অবৈধ ও আইনগত কর্তৃত্ব বর্হিভূত ঘোষণা করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয় রুলে। পাশাপাশি শাস্তি প্রদানকারী ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এবং লক্ষ্মীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার কারণে কেন আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়।

আইনজীবী রেজাউল করিম বলেন, আজকে (বুধবার) চর মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও কমলনগর থানার ওসি ভুল স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করেছিলেন। আদালত বলেছেন, এটিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। এখানে ফৌজদারী অপরাধ হয়েছে। সুতরাং এ দু’জনের ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি চেয়ে করা আবেদন গ্রহণ করেননি।

আগামী ৯ মার্চ (বৃহস্পতিবার) হাইকোর্ট পরবর্তী শুনানির তারিখ দিয়েছেন এবং সেই দিনও এ দু’জনকে হাজির হতে হবে বলে জানান এ আইনজীবী।

জাগো নিউজ

সর্বশেষ

মাংকিপক্স নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কতা

বিশ্বজুড়ে এখন আতঙ্ক ছড়াচ্ছে মাংকিপক্স। এরই মধ্যে ১৫টি এই রোগ ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। ফলে এই রোগ নিয়ে সতর্ক করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বিশ্ব...

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয়টিতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ দল। সোমবার (২৩ মে)...

কালোজিরার যত গুণ

কালিজিরার বোটানিক্যাল নাম ‘নাইজিলা সাটিভা’ (Nigella sativa), এটি পার্সলে পরিবারের একটি উদ্ভিদ। এটা রাজা...

নরসিংদীতে স্ত্রী সন্তানসহ ৩ জনকে খুনের দায়ে স্বামী গ্রেপ্তার

মোঃ মোবারক হোসেন, নরসিংদী প্রতিনিধি নরসিংদীর বেলাবতে একই পরিবারের তিনজনকে খুনের ঘটনার কয়েকঘন্টার মধ্যে নিহত...

রামগঞ্জে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের ১৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

আবু তাহের,রামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা ও পৌর আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের উদ্যোগে রামগঞ্জ খাঁন টাওয়ারে...

শাহজাদপুর আওয়ামীলীগের কার্যকরি সদস্য হলেন সাবেক ছাত্রনেতা এমদাদুল হক দাদুল

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরি কমিটির সদস্য নির্বাচিত হলেন সাবেক ছাত্রনেতা, শাহজাদপুরের...