বৃহস্পতিবার, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ,২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় অনুমোদিত, রেজি:নং ৭৮

চেয়ারম্যানের এত ক্ষমতা : হাইকোর্ট

Array

চেয়ারম্যানের এত ক্ষমতা’ -মারপিট করার এখতিয়ার এবং আইন হাতে তুলে নেয়ার ঘটনায় এমন প্রশ্ন তুলেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেন, চেয়ারম্যান সাহেব এত ক্ষমতা কোথায় পেলেন? মারপিট করার এখতিয়ার কোথায় পেলেন? চেয়ারম্যান কি এতই ক্ষমতাধর যে আইন হাতে তুলে নেবেন? বিষয়টি সহজে ছাড়া হবে না।

গ্রাম্য সালিশে ফতোয়ার নামে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদানের ঘটনায় লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও একই উপজেলার চর মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে বুধবার আদালত এসব কথা বলেন। এ সময় তারা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদালত তাদেরকে আগামী ৯ মার্চ আবারও আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চেয়ারম্যান দাফতরিক দায়িত্ব পালন করেছেন কিনা, সে বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রতিবেদন দিতে বলেন। পাশাপাশি লক্ষ্মীপুরের বিচারিক আদালত থেকে ওই চেয়ারম্যানের নেয়া জামিনের নথিও তলব করা হয়।

হাইকোর্টের বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি একেএম সাহিদুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে এ বিষয়ে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী এসএম রেজাউল করিম। চেয়ারম্যানের পক্ষে শুনানি করেন আবদুর রব চৌধুরী ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পক্ষে শুনানি করেন মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল সোহেল। এছাড়া আদালতে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ এস এম নাজমুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চর মার্টিন ইউনিয়নের গ্রাম্য সালিশে ফতোয়ার নামে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদান সংক্রান্ত ঘটনায় স্বঃপ্রণোদিত রুল দেন হাইকোর্টের এই বেঞ্চ। ওই দিনই এ সংক্রান্ত সংবাদ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন আইনি সেবা দানকারী বেসরকারি সংস্থা ব্লাস্ট-এর আইন উপদেষ্টা ও পরিচালক এস এম রেজাউল করিম আদালতের নজরে আনলে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ রুল জারি করেন।

ফতোয়ার নামে গ্রাম্য সালিশে নারী ও পুরুষকে বিচার বর্হিভূত শাস্তি প্রদান কেন অবৈধ ও আইনগত কর্তৃত্ব বর্হিভূত ঘোষণা করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয় রুলে। পাশাপাশি শাস্তি প্রদানকারী ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এবং লক্ষ্মীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার কারণে কেন আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়।

আইনজীবী রেজাউল করিম বলেন, আজকে (বুধবার) চর মার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও কমলনগর থানার ওসি ভুল স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করেছিলেন। আদালত বলেছেন, এটিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। এখানে ফৌজদারী অপরাধ হয়েছে। সুতরাং এ দু’জনের ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি চেয়ে করা আবেদন গ্রহণ করেননি।

আগামী ৯ মার্চ (বৃহস্পতিবার) হাইকোর্ট পরবর্তী শুনানির তারিখ দিয়েছেন এবং সেই দিনও এ দু’জনকে হাজির হতে হবে বলে জানান এ আইনজীবী।

জাগো নিউজ

সর্বশেষ

জলাতঙ্ক মুক্ত বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি: শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশে জলাতঙ্ক রোগে মৃত্যু শূণ্যের কোঠায় নিয়ে আসতে ২০০৯ সাল থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে আসছে। জলাতঙ্ক...

আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস আজ

আজ বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস। এবছর ‘তথ্য প্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য...

লক্ষ্মীপুরে বড় ভাইকে হত্যার দায়ে ছোট ভাইয়ের যাবজ্জীবন

প্রদীপ কুমার রায়ঃ জেলা সদরে পারিবারিক কলহের জের ধরে দা দিয়ে কুপিয়ে বড় ভাই আবদুল...

লক্ষ্মীপুরে বজ্রপাতে কৃষক নিহত : আহত ১

লক্ষ্মীপুরে ধানক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে মো. হানিফ (৬৫) নামে এক কৃষক মারা গেছেন।...

জেলা পরিষদ নির্বাচনে সৈকত মাহমুদকে আ’লীগের দলীয় সমর্থন 

আবু তাহের,রামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ আসছে আগামী ১৭অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদ নির্বাচন ২০২২। এই নির্বাচনে...

অসহায় বৃদ্ধার পাশে লক্ষ্মীপুরের এসপি, বৃদ্ধার দোয়ায় মুগ্ধ

জুনাইদ আল হাবিব- সেবা নিতে আসা এক বৃদ্ধার পাশে দাঁড়িয়েছেন লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার মো....