কোম্পানীগঞ্জে ঘুষের অভিযোগে ২ পুলিশ কর্মকর্তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ

শেয়ার

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থানায় বাদী-বিবাদীকে আটক করে ১৫হাজার টাকা ঘুষ নেয়া সেই ২পুলিশ কর্মকর্তাকে (এস.আই) স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে।সোমবার বিকেলে নোয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ঘুষ নেয়ার অভিযোগ উঠায় এসআই আশরাফুল ইসলাম ও সাজ্জাদ হোসনকে তাৎক্ষণিক ভাবে বদলীর আদেশ দেয়া হয়েছে। অনিয়মকারীদের কোন ছাড় নেই। একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বিভাগীয় মামলা দিয়ে বিষয়টি তদন্ত করা হবে। পুলিশ একটি শৃঙ্খলিত বাহিনী। এখানে বিশৃঙ্খলার কোন সুযোগ নেই। বদলী আদেশ পাওয়া এসআই আশরাফুল ইসলামকে নোয়াখালীর হাতিয়া থানায় ও সাজ্জাদ হোসেনকে ভাসানচর থানায় বদলী করা হয়েছে।

অতিদ্রুত তাদেরকে বর্তমান কর্মস্থল কোম্পানীগঞ্জ ত্যাগ করে বদলীকৃতস্থানে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, উপজেলার চরপার্বতী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের রুহুল আমিন এর সাথে প্রতিবেশী খোরশেদ আলমের সম্পত্তি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে নোয়াখালী অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে রুহুল আমিন মামলা করেন। আদালত ঐ জমিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

গত ১৭ জানুয়ারী কোম্পানীগঞ্জ থানা থেকে আদালতের নিষেধাজ্ঞার আলোকে নোটিশ জারি করা হয়। এরপর গত সোমবার ২২ জানুয়ারী খোরশেদ আলম ঐ জমিতে কাজ করতে গেলে সংঘর্ষের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। পরে ৯৯৯ নাম্বারে কল পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে বাদীর ২ছেলে, বিবাদীসহ ৪জনকে আটক করে পুলিশের এসআই আশরাফুল ইসলাম। পরদিন মঙ্গলবার সকালে তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়। খোরশেদ আলমের স্বজন মাইমুল হক ইভান জানান, থানা থেকে খোরশেদ ও তার পক্ষে রিয়াদকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে এসআই আশরাফুল ৫হাজার এবং এসআই সাজ্জাদ ১০হাজার টাকা ঘুষ নেন। তাদেরকে ছেড়ে না দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে মঙ্গলবার রাতে আমাদের বাড়িতে ১৫হাজার টাকা ফেরত দিয়ে যান পুলিশ কর্মকর্তারা।

সম্পর্কিত খবর

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.