গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় অনুমোদিত

করোনায় অসহায় কর্মহীন  মানুষকে বাঁচাতে এখনি যাকাত আদায়ের সর্ব উৎকৃষ্ট সময় : ফিরোজ আলম

করোনাভাইরাসের প্রভাবে সৃষ্ট অর্থনৈতিক মন্দায় ৪ কোটি নিম্ন আয়ের মানুষ, শ্রমজীবী  এবং দিনমজুরেরা   তিন বেলা খাবার যোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছে। করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশে টানা লকডাউনে  শ্রমজীবী মানুষের দুর্দশা এখন চরমে। বিশেষ করে রিক্সাওয়ালা, হকার কিংবা সরকারের ট্রেড লাইসেন্স ও শ্রম আইনের অধীনে নেই এরকম অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের কয়েক কোটি শ্রমজীবী মানুষ রয়েছেন চরম বিপাকে।
এমন পরিস্থিতিতে সরকার গত বছর বাড়তি ৫০ লাখ রেশন কার্ড, টিসিবির মাধ্যমে সারা দেশে  ৪০০টি স্থান থেকে পণ্য বিক্রি করা,শিল্প ও সেবা খাতের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা প্রনোদনা প্রদান  ,৭২ হাজার ৭৫০কোটি টাকার প্রনোদনা প্যাকেজ,স্বাস্থ্য বীমা চালু,কৃষকদের জন্য ৫হাজার কোটি টাকার প্রনোদনা দান,৫লাখ মেট্রিক টন চাল,১ লক্ষ মেট্রিক টন গম,৪৬ হাজার মেট্রিক টন অন্যান্য খাবার প্রভৃতি সরবরাহ করেছিল।তদুপরি বেসরকারি মালিকানাধীন অঙ্গ সংগঠন,রাজনৈতিক অঙ্গ সংগঠন প্রভৃতি সহযোগিতা ও ছিল।তারপর ও মানুষের মাঝে খাদ্য সংকট তীব্র ছিল। এ বছর উল্লেখযোগ্য করার মত যেমনি বেসরকারি মালিকানাধীন অঙ্গ সংগঠন,রাজনৈতিক অঙ্গ সংগঠন প্রভৃতির  সহযোগিতা  লক্ষনীয় হচ্ছেনা, তেমনি সরকারি বরাদ্দ ও গৌণ।উত্তর বঙ্গের অনেক মানুষকে  দুবেলা  দুমুঠো খাবারের দাবিতে রাস্তায় অনশন করতে দেখা যাচ্ছে।
এ অবস্থায় সরকারি সহযোগিতার পাশাপাশি সামর্থ্যবান প্রত্যেক মানুষের উচিত বিপন্ন মানুষের জীবন বাঁচাতে পাশে দাঁড়ানো। এই পরিস্থিতিতে যাকাত হতে পারে ক্ষুধার্ত মানুষের মুখে খাবার যোগানোর উত্তম পন্থা। একই সাথে এই সময়টা হতে পারে একজন মুসলিমের যাকাত প্রদানের উৎকৃষ্ট সময়।  এতে  যাকাত ও আদায় হবে আবার নিরুপায়,অসহায় ক্ষুধার্ত মানুষের ও উপকার হবে।
ইসলামে নামাজ-রোজার মতই যাকাত একটি ফরজ ইবাদত। যাকাত হচ্ছে অর্থের ইবাদত। আর্থিকভাবে সচ্ছল মানুষদের ওপর যাকাত আদায় বাধ্যতামূলক।
★যাকাত কি:
যাকাত শব্দের  অর্থ বৃদ্ধি করা বা পরিশুদ্ধ করা, পবিত্র করা, বৃদ্ধি পাওয়া, বরকত হওয়া ইত্যাদি ।  যাকাত হলো ইসলাম ধর্মের পঞ্চস্তম্ভের অন্যতম একটি। প্রত্যেক স্বাধীন, পূর্ণবয়স্ক মুসলমান নর-নারী নিসাব পরিমান তথা ইসলামী শরিয়ত নির্ধারিত সীমা পরিমান সম্পদের মালিক হলে  নির্ধারিত সীমার অধিক সম্পত্তি হিজরি ১ বছর ধরে থাকলে মোট সম্পত্তির ২.৫ শতাংশ (২.৫%) বা ১/৪০ অংশ যাকাত হিসেবে গরীব-দুঃস্থদের প্রদান করতে হয়।মনে রাখতে হবে নিসাব একটি ইসলামি শব্দ। এর মানে হচ্ছে দৈনন্দিন প্রয়োজন পূরণ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বাদ দেয়ার পর সাড়ে বায়ান্ন তোলা পরিমাণ রূপা অথবা সাড়ে সাত তোলা পরিমাণ স্বর্ণ থাকলে অথবা এর সমমূল্যের ব্যবসায়িক পণ্যের মালিকানা থাকলে তাকে যাকাতের নিসাব বলে।
★যাকাতের নিসাব:
ন্যূনতম যে পরিমাণ ধন-সম্পদ থাকলে যাকাত আদায় করা ফরজ তা হল
★হাতে রক্ষিত অথবা ব্যাংকে নগদ গচ্ছিত অর্থ, শেয়ার সার্টিফিকেট, প্রাইজবন্ড ও সার্টিফিকেট সমূহ।
★৫২.৫ তোলা রূপা বা তার সমপরিমাণ বাজার মূল্য।
★মোট অর্থের শতকরা ২.৫% যাকাত দিতে হবে।
★স্বর্ণ/রৌপ্য, মূল্যবান ধাতু ও স্বর্ণ বা রৌপ্যের অলংকার।
★৭.৫ তোলা স্বর্ণ কিংবা ৫২.৫ তোলা রৌপ্য অথবা সমপরিমাণ অর্থ।
আদায়কালীন বাজার মূল্য অনুযায়ী মোট অর্থের শতকরা ২.৫% যাকাত দিতে হবে।
★বাণিজ্যিক সম্পদ ও শিল্পজাত ব্যবসায় প্রতিশ্রুত লভ্যাংশের ভিত্তিতে প্রদত্ত অর্থ।
৫২.৫ তোলা রূপার মূল্যে  ২.৫% যাকাত দিতে হবে।
★উৎপাদিত কৃষিজাত ফসল।
বৃষ্টির পানিতে উৎপাদিত ফসলের উশর  ১/১০ অংশ,  সেচে উৎপাদিত জমিরফসলের  ১/২০  অংশ  অথবা শস্যের বাজার মূল্যের সমপরিমাণ প্রতি মৌসুমে আদায়যোগ্য।
★পশু সম্পদ
(ক) ভেড়া বা ছাগল প্রভৃতি।
১ থেকে ৩৯টি পর্যন্ত
যাকাত প্রযোজ্য নয়।
৪০থেকে ১২০টি
১টি ভেড়া/ছাগল
 ১২১ থেকে ২০০টি
২টি ভেড়া/ছাগল
 ২০১ থেকে ৩০০টি
৩টি ভেড়া/ছাগল
 এর অতিরিক্ত প্রতি ১০০টির যাকাত
১টি করে ভেড়া/ছাগল
(খ) গরু, মহিষ ও অন্যান্য গবাদি পশু।
১ থেকে ২৯টি পর্যন্ত
যাকাত প্রযোজ্য নয়।
 ৩০ থেকে ৩৯টি
এক বছর বয়সী ১টি বাছুর
 ৬০টি এবং ততোধিক
প্রতি ৩০টির জন্য ১ বছর বয়সী এবং প্রতি ৪০টির জন্য ২ বছর বয়সী বাছুর।
 ★ব্যবসার উদ্দেশ্যে মৎস্য চাষ, হাঁস-মুরগী পালন এবং ব্যবসার উদ্দেশ্যে ক্রয়কৃত জমি, নির্মিত বাড়ী প্রভৃতির বাজার মূল্যের হিসাব হবে।
৫২.৫ তোলা রূপার মূল্যে ২.৫% অর্থ যাকাত দিতে হবে।
★খণিজ দ্রব্য।
যে কোন পরিমাণ উত্তোলিত খণিজ দ্রব্যের শতকরা ২০ ভাগ।
★প্রভিডেন্ট ফান্ডঃ
সরকারী প্রতিষ্ঠানে বা যে সকল কর্পোরেশনে সরকারী নিয়মানুযায়ী প্রভিডেন্ট ফান্ড কর্তন করা হয়, উক্ত প্রভিডেন্ট ফান্ডের কর্তৃনকৃত টাকার উপর যাকাত ওয়াজিব হবে না। তবে এই টাকা গ্রহণ করার পর একবছর পূর্ণ হলে সম্পূর্ণ টাকার উপর যাকাত প্রদান করতে হবে।
৫২.৫তোলা রূপার মূল্য শতকরা ২.৫ ভাগ যাকাত দিতে হবে।
★কোন বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির উদ্যোগে প্রভিডেন্ট ফান্ড গঠন করা হলে প্রতি বছর তার উপর যাকাত দিতে হবে।
৫২.৫ তোলা রূপার মূল্য শতকরা ২.৫ ভাগ যাকাত দিতে হবে
 উল্লেখ্য: নিসাব পরিমাণ মালের মালিক হওয়ার দিন থেকে এক বছর পুর্তির পর যাকাত ফরয হয়।
★যাকাত বন্টনের নির্ধারিত ৮টি খাতের বিবরণ:
সূরা তাওবার ৬০ নং আয়াতে আছে
إِنَّمَا الصَّدَقَاتُ لِلْفُقَرَاء وَالْمَسَاكِينِ وَالْعَامِلِينَ عَلَيْهَا وَالْمُؤَلَّفَةِ قُلُوبُهُمْ وَفِي الرِّقَابِ وَالْغَارِمِينَ وَفِي سَبِيلِ اللّهِ وَابْنِ السَّبِيلِ فَرِيضَةً مِّنَ اللّهِ وَاللّهُ عَلِيمٌ حَكِيمٌ
যাকাত হল কেবল ফকির, মিসকীন, যাকাত আদায় কারী ও যাদের চিত্ত আকর্ষণ প্রয়োজন তাদে হক এবং তা দাস-মুক্তির জন্যে-ঋণ গ্রস্তদের জন্য, আল্লাহর পথে জেহাদকারীদের জন্যে এবং মুসাফিরদের জন্যে, এই হল আল্লাহর নির্ধারিত বিধান। আল্লাহ সর্বজ্ঞ
প্রথম খাতঃ ফকীর- ফকীর হলো সেই ব্যক্তি যার নিসাব পরিমাণ সম্পদ নেই। যে ব্যক্তি রিক্তহস্ত, অভাব মেটানোর যোগ্য সম্পদ নেই, ভিক্ষুক হোক বা না হোক, এরাই ফকীর।
দ্বিতীয় খাতঃ মিসকীন- মিসকীন সেই ব্যক্তি যার কিছুই নেই, যার কাছে একবেলা খাবারও নেই। যে সব লোকের অবস্থা এমন খারাপ যে, পরের নিকট সওয়াল করতে বাধ্য হয়, নিজের পেটের আহারও যারা যোগাতে পারে না, তারা মিসকীন।
তৃতীয় খাতঃ আমেলীন-  ইসলামী সরকারের পক্ষে লোকদের কাছ থেকে যাকাত, উসর প্রভৃতি আদায় করে বায়তুল মালে জমা প্রদান, সংরক্ষণ ও বন্টনের কার্যে নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ। এদের পারিশ্রমিক যাকাতের খাত থেকেই আদায় করা যাবে। ।
 চতুর্থ খাতঃ মুআল্লাফাতুল কুলুব (মন জয় করার জন্য)- নতুন মুসলিম যার ঈমান এখনও পরিপক্ক হয়নি অথবা ইসলাম গ্রহণ করতে ইচ্ছুক অমুসলিম।
 পঞ্চম খাতঃ ক্রীতদাস/বন্দী মুক্তি- এ খাতে ক্রীতদাস-দাসী/বন্দী মুক্তির জন্য যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে। অন্যায়ভাবে কোন নিঃস্ব ও অসহায় ব্যক্তি বন্দী হলে তাকেও মুক্ত করার জন্য যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে।
  ষষ্ঠ খাতঃ ঋণগ্রস্থ-  এ ধরণের ব্যক্তিকে তার ঋণ মুক্তির জন্য যাকাত দেয়ার শর্ত হচ্ছে- সেই ঋণগ্রস্থের কাছে ঋণ পরিশোধ পরিমাণ সম্পদ না থাকা। আবার কোন ইমাম এ শর্তারোপও করেছেন যে, সে ঋণ যেন কোন অবৈধ কাজের জন্য- যেমন মদ কিংবা না- জায়েয প্রথা  অনুষ্ঠান ইত্যাদির জন্য ব্যয় না করে।
 সপ্তম খাতঃ আল্লাহর পথে- সম্বলহীন মুজাহিদের যুদ্ধাস্ত্র/সরঞ্জাম  উপকরণ সংগ্রহ এবং নিঃস্ব ও অসহায় গরীব দ্বীনি শিক্ষারত শিক্ষার্থীকে এ খাত থেকে যাকাত প্রদান করা যাবে।
অষ্টম খাতঃ অসহায় মুসাফির- যে সমস্ত  মুসাফির অর্থ কষ্টে নিপতিত তাদেরকে মৌলিক প্রয়োজন পুরণ হওয়ার মত এবং বাড়ী ফিরে আসতে পারে এমন পরিমাণ অর্থ যাকাত থেকে প্রদান করা যায়।
  আল্লাহ তায়ালা কোরানে  মোট ৩২ বার যাকাত আদায়ের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ এককভাবে ৭ বার আর সালাতের সাথে ২৫ বার যাকাত আদায়ের কথা বলেছেন।  সূরা বাকারার ৪৩ নং আয়াতে বলা হয়েছে
وَأَقِيمُواْ الصَّلاَةَ وَآتُواْ الزَّكَاةَ وَارْكَعُواْ مَعَ الرَّاكِعِينَ
তোমরা যথাযথ ভাবে নামাজ কায়েম কর ও যাকাত দাও এবং রুকুকারীদের সাথে রুকু কর।
 সূরা মুজাম্মিলের ২০ নং আয়াতে বলা হয়েছে
তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও এবং আল্লাহকে দাও উত্তম ঋণ।সূরা মুজাদালাহের  ১৩ নং আয়াতে আছে  أَأَشْفَقْتُمْ أَنْ تُقَدِّمُوا بَيْنَ يَدَيْ نَجْوَاكُمْ صَدَقَاتٍ فَإِذْ لَمْ تَفْعَلُوا وَتَابَ اللَّهُ عَلَيْكُمْ فَأَقِيمُوا الصَّلَاةَ وَآتُوا الزَّكَاةَ وَأَطِيعُوا اللَّهَ وَرَسُولَهُ وَاللَّهُ خَبِيرٌ بِمَا تَعْمَلُ       তোমরা কি ভয় পেয়ে গেলে যে একান্ত পরামর্শের পূর্বে সদাকা পেশ করবে? হ্যাঁ, যখন তোমরা তা করতে পারলে না, আর আল্লাহও তোমাদের ক্ষমা করে দিলেন, তখন তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও এবং আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের আনুগত্য কর। তোমরা যা কর, আল্লাহ সে সম্পর্কে সম্যক অবগত।সূরা হা-মীম সাজদার ৭নং আয়াতে আছে الَّذِينَ لَا يُؤْتُونَ الزَّكَاةَ وَهُم بِالْآخِرَةِ هُمْ كَافِرُونَ
যারা যাকাত দেয় না এবং তারাই  পরকালকে অস্বীকারী  কাফির
যাকাত হচ্ছে  ধনীদের সম্পদে বঞ্চিতদের অধিকার। এটা বঞ্চিতদের প্রতি ধনীদের কোনো করুণা বা অনুগ্রহ নয়। আবার এটা দানও নয়।   যাকাত প্রদানকে আল্লাহ ফরজ করে দিয়েছেন, যাতে একদিকে যাকাত আদায়ের মাধ্যমে ধনী ব্যক্তিরা তাদের ধর্মীয় বিধান পালন করবে, অপরদিকে যাকাতের অর্থ দিয়ে অটোমেটিক্যালি সমাজ থেকে দারিদ্র্য এবং সমস্যা দূর হবে।
সূরা রূমের ৩৯ নং আয়াতে আছে
وَمَآ ءَاتَيۡتُم مِّن رِّبً۬ا لِّيَرۡبُوَاْ فِىٓ أَمۡوَٲلِ ٱلنَّاسِ فَلَا يَرۡبُواْ عِندَ ٱللَّهِ‌ۖ وَمَآ ءَاتَيۡتُم مِّن زَكَوٰةٍ۬ تُرِيدُونَ وَجۡهَ ٱللَّهِ فَأُوْلَـٰٓٮِٕكَ هُمُ ٱلۡمُضۡعِفُونَ ٣٩   আর তোমরা যে সূদ দিয়ে থাক, মানুষের সম্পদে বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য তা মূলতঃ আল্লাহর কাছে বৃদ্ধি পায় না। আর তোমরা যে যাকাত দিয়ে থাক আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনা করে তাই বৃদ্ধি পায় এবং তারাই বহুগুণ সম্পদ প্রাপ্ত হয় ।
যাকাত আদায়ের ফলে ধনীদের সম্পদ দরিদ্রদের হাতে যায়। ফলে গরিবদের হাতে টাকা থাকে এবং তাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়ে। ফলে অর্থনীতির চাকা সচল হয়, সমাজে দরিদ্রের সংখ্যা কমে এবং ধনী-গরিবের বৈষম্যও কমে। সমাজে সাম্য সৃষ্টি হয়।
★হাদিসের আলোকে যে সকল সম্পদসমূহের যাকাত দেওয়া লাগবেনা:
 জমি ও বাড়িঘর, মিল, ফ্যাক্টরি, ওয়্যারহাউজ বা গুদাম ইত্যাদি, দোকান, এক বছরের কম বয়সের গবাদি পশু, ব্যবহার্য যাবতীয় পোশাক, বই, খাতা, কাগজ ও মুদ্রিত সামগ্রী, গৃহের যাবতীয় আসবাবপত্র, বাসন-কোসন ও সরঞ্জামাদি, তৈলচিত্র ও স্ট্যাম্প, অফিসের যাবতীয় আসবাব, যন্ত্রপাতি, সরঞ্জাম ও নথি, গৃহপালিত সকলপ্রকার মুরগী ও পাখি, কলকব্জা, যন্ত্রপাতি ও হাতিয়ার ইত্যাদি যাবতীয় মূলধনসামগ্রী, চলাচলের যন্তু ও গাড়ি, যুদ্ধাস্ত্র ও যুদ্ধ-সরঞ্জাম, ক্ষণস্থায়ী বা পঁচনশীল যাবতীয় কৃষিপণ্য, বপন করার জন্য সংরক্ষিত বীজ, যাকাতবর্ষের মধ্যে পেয়ে সেবছরই ব্যয়িত সম্পদ, দাতব্য বা জনকল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠানের সম্পদ, যা জনস্বার্থে নিয়োজিত, সরকারি মালিকানাধীন নগদ অর্থ, স্বর্ণ-রৌপ্য এবং অন্যান্য সম্পদ, যে ঋণ ফেরত পাবার আশা নেই ,তার উপর যাকাত ধার্য হবে না
 তাই আসুন করোনার মহা সংকট থেকে বাংলার মুসলমানদের বাঁচাতে যাদের উপর যাকাত ফরজ আমরা প্রত্যেকেই সঠিকভাবে যাকাত আদায় করি।পাশাপাশি সরকারের নিকট বিনিত অনুরোধ,
পশ্চিমা দেশগুলোর সরকার অসচ্ছল  নাগরিকদের সরাসরি বিপুল অঙ্কের অর্থ দিচ্ছে। তাদের মতো সামর্থ্য বাংলাদেশের হয়ত  না থাকতে পারে, কিন্তু পাঁচ লাখ কোটি টাকার বাজেটের কিয়দংশ  এই  মানুষগুলোর দুর্দশা লাঘবে বরাদ্দ করা গেলে অসহায় মানুষেরা বেঁচে থাকার সাহস পাবে। জননেত্রী মাদার অব হিউম্যানিটি শেখ হাসিনা সরকারের অসহায় মানুষদের প্রতি আর্থিক প্রনোদনা কিংবা সহযোগিতা  প্রকৃত সুবিধাভোগীদের কাছে পৌঁছার আগেই  পথিমধ্যে  যাতে গায়েব না হয়ে যায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের  মুখে প্রায়ই উচ্চারিত ‘জিরো টলারেন্স’ শব্দ দুটি প্রয়োগ করে তা নিশ্চিত করতেই  হবে। পাশাপাশি ধনীদের সম্পদ না লুকিয়ে নিয়ম মাফিক যথাযথ যাকাত দানের মাধ্যমে এবারের ঈদ হতে পারে অসহায় মানুষের মুখের হাসি।
অন্যদিকে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত বিশ্বে  প্রায় পাঁচ কোটি মানুষ অনাহারে মারা যেতে পারে  ডব্লিউএফপি প্রধান যে পূর্বাভাস দিয়েছেন তাতে সচেতন থাকি।যদি বাংলাদেশে সব মানুষ সঠিকভাবে যাকাত প্রদান করে বাংলাদেশের একটি মানুষ ও ক্ষুধার্ত থাকবেনা।একটি মানুষ ও অসহায়,নিরুপায় এবং খাবারের অভাবে হাহাকার করবেনা।
ফিরোজ আলম,বিভাগীয় প্রধান (অনার্স শাখা), আয়েশা (রা:)মহিলা অনার্স কামিল মাদ্রাসা,সদর, লক্ষীপুর। সাধারন সম্পাদক,লক্ষীপুর জেলা শাখা এবং সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক  ,কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি, বিএমজিটিএ
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ

রামগতি উপজেলা সরকারি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের নতুন কমিটি গঠন

দেলোয়ার হোসেন, রামগতিঃ- লক্ষীপুর জেলার রামগতি উপজেলার চতুর্থ শ্রেণীর সরকারি কর্মচারী পরিষদের নবগঠিত পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ বুধবার সন্ধ্যা উপজেলার নবনির্মিত কৃষি ভবনের...

৮ দফা দাবিতে সিরাজগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা শহিদ পরিবার জনতার মিছিল সমাবেশ

ইমরান হোসাইন, সিরাজগঞ্জঃ গণহত্যায় নিহতদের শহিদের মর্যাদা, শহিদ ভূমিহীন পরিবারকে পুনর্বাসন, যুদ্ধস্থান গণহত্যার স্থান চিহ্নিতকরণ...

সাংসদ তানভীর ইমামের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদ

ইমরান হোসাইন, সিরাজগঞ্জঃ উল্লাপাড়া উপজেলার চলমান উন্নয়ন কর্মকান্ডকে বাঁধাগ্রস্থ ও আওয়ামীলীগকে সাংগঠনিকভাবে দুর্বল করতে একটি...

আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধে ব্র্যাক’র প্রচার অভিযান ও মানববন্ধন

ইমরান হোসাইন, সিরাজগঞ্জ: ‘নারী নির্যাতন বন্ধ করি, কমলা রঙের বিশ্ব গড়ি’ শ্লোগানকে সামনে রেখে এক...

রামগতিতে বৃষ্টির পানিতে ডুবলো ধান, অসহায় কৃষকের স্বপ্ন ধূলিসাঁৎ

দেলোয়ার হোসেন, রামগতিঃ- টানা বৃষ্টির পানিতে ভাসছে পাকাঁ ধান, হতাশায় দিন কাটছে এখানকার খেটে খাওয়া...

আবরার হত্যা মামলায় ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২০ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।...