কমলনগরে সেচ প্রকল্পে বাড়তি টাকা আদায়: ধান কাটতে বাধা

শেয়ার

লক্ষ্মীপুর:
লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে চর মার্টিন ইউনিয়নে ইরিধান সেচ প্রকল্পে বাড়তি টাকা না দেওয়ায় কৃষকদের ধান কাটতে দিচ্ছে না স্কিম ম্যানেজাররা। ওই ইউনিয়নে ১১০ হেক্টর জমিতে ইরিধানের প্রজেক্ট রয়েছে কৃষকদের। সময়মত ধান কাটতে না পারলে ক্ষতিগ্রস্থ হবে কৃষকরা।

বুধবার (১০ এপ্রিল) উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন কৃষক শাহাজান চৌধুরী।

চর মার্টিন ইউনিয়নের কয়েকজন কৃষক জানান, ইরিধান প্রকল্পের চাষ ও পানি সরবরাহে প্রতি শতাংশে ৭৫ থেকে ১০০ টাকা হারে অর্থ আদায়ে বাধ্য করা হচ্ছে। বাড়তি টাকা না দিলে কৃষকদের নাজেহাল ও হয়রানি করা হয় এবং ধান কাটতে দিচ্ছে না স্কিম ম্যানেজারেরা। ধান কাটতে না দেওয়া কৃষকদের ধান পানিতে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এতে আমাদের অনেক ক্ষতি হবে।

স্কীম ম্যনেজার মুগবুল আহমদ জানান, আমাদের খরচ বেশী তাই প্রতি শতাংশে ৭৫ টাকা করে নিচ্ছি। টাকা দিয়েই কৃষকরা ধান কাটবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (অঃ দাঃ) মো. আবদুছ ছোবহান জানান, চর মার্টিন ইউনিয়নের ইরিধান সেচ প্রকল্পের কৃষকের সাথে স্কিম ম্যানেজাদের যে সমস্যা হয়েছে তা সমাধানের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার দায়িত্ব দিয়েছেন তা আমরা শ্রীঘ্রই সমাধান করব।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি সেচ) উপসহকারি প্রকৌশলী (সেচ) মো. সানাউল্যাহ জানান, প্রতিবছর সেচ বাবদ টাকা নির্ধারন করে দেওয়া হয় এ বছর এখনো করা হয়নি। তবে গত বছর বিদ্যুৎ চালিত সেচ প্রতি শতাংশে ৫০ টাকা এবং ডিজেল চালিত সেচ প্রকল্পে ৬৫ টাকা করে নির্ধারন করে দেওয়া হয়। তবে এর বেশী নেওয়া ঠিক হবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা জানান, কৃষকদের অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (অ:দা:) ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ইউছুফ আলীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে শ্রীঘ্রই সমাধান করার জন্য যাতে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ না হয়।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.