উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে পিছিয়ে রয়েছে কমলনগর

শেয়ার

লক্ষ্মীপুর :

কমলনগর উপজেলা উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে পিছিয়ে রয়েছে। এ উপজেলা এখনো রয়ে গেছে উপকূলের বিচ্ছিন্ন জনপদ হিসেবে।

দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের মধ্যে বিপন্ন আর অনগ্রসর জনপদের মধ্যে কমলনগর অন্যতম। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায় ভাঙ্গা সাকো, ভাঙ্গা কাঠের পুল এমনকি চলাচলের রাস্তাগুলোও অচল অবস্থায়। যেখানে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর ঝুঁকি রয়েছে।

এ জনপদের অধিকাংশ পরিবার দরিদ্রের বেড়াজাল থেকে মুক্তি পাচ্ছে না। বিভিন্ন সময়ে প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে সর্বস্ব হারাতে হচ্ছে এ দরিদ্র গোষ্ঠীকে। একটি প্রাকৃতিক দূর্যোগ শেষ না হতেই আরেকটির হানা ব্যাপক ক্ষতির সৃষ্টি করে এ জনগোষ্ঠীর। তাই দূর্যোগ মোকবেলা করতেই তাদের প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করতে হয়।

কমলনগরের প্রধান সমস্যা নদীভাঙন। মেঘনার করাল গ্রাসে লক্ষ্মীপুরের মানচিত্র থেকে অনেকটা ছোট হয়ে গেছে উপজেলাটি। নদীর অব্যাহত ভাঙনে উপকূলের মানুষগুলো ভিটে-মাটি হারিয়ে মাথা গুজবার জন্য খোলা আকাশের নিচে কিংবা অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে।

মেঘনার ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে সরকারি-বেসরকারি বহু স্থাপনা। সম্প্রতি সরকার মেঘনার ভাঙন রোধে কমলনগরের ১ কিলোমিটার বাঁধের কাজ করলেও এটি পর্যাপ্ত নয়। দরকার আরো সাড়ে ৫ কিলোমিটার তীর রক্ষা বাঁধ। তা না হলে ওই ১ কিলোমিটার বাঁধও বেশিদিন টিকবে না বলে ধারণা স্থানীয়দের।

এদিকে সর্বহারা পরিবারগুলো ভিটে-মাটি ও সম্পদসহ হারিয়েছে প্রতিবেশি এবং আত্মীয়-স্বজনদের সান্নিধ্য। আজীবন আত্মীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ স্বজনরা এখন বছরে একবারও কারো সাথে দেখা করার সুযোগ পাচ্ছে না।

এ অঞ্চলের বহু শিক্ষার্থী শিক্ষার আলো থেকে ঝরে পড়েছে মেঘনার ভাঙনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিলীন হয়ে যাওয়ায়। অনেক শিক্ষক বেকার দিনযাপন করছেন। এ জনপদের শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হয় দূর-দূরান্ত ছুটে। সেখানেও বাঁধা হয়ে রয়েছে চলাচল ব্যবস্থা। নদী তীরবর্তী হওয়ায় অসংখ্য খাল-বিল এ উপজেলার মধ্যে বহমান। এই খাল-বিলের এক পাশ থেকে অন্য পাশ যেতে অনেক কষ্ট করে; এমনিক মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয়।

কেননা কাঠের পুল; যা দীর্ঘদিন রোদ-বৃষ্টিতে ভিজে পঁচন ধরে গেছে, বাঁশের সাঁকো; যেখানে প্রতিনিয়ত স্লিপ খেয়ে পড়ে মৃত্যুর মত দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

মানুষগুলো ব্যাপক সমস্যায় জর্জরিত। প্রতিনিয়ত এ জনগোষ্ঠী এসব সমস্যা থেকে উত্তরনের দোয়া করে বিধাতার কাছে। তাদের আক্ষেপ এ দূর্ভোগ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কিংবা সরকারের উচ্চ মহল উপলব্ধি করে না।

অপর্যাপ্ত বেড়িবাঁধ : অপর্যাপ্ত বেড়ি বাঁধের কারণে নদী তীরবর্তী গ্রামগুলো প্রায়ই জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়। উপজেলার চর মার্টিন ও চর কালকিনির মাঝামাঝি একটি বেড়িবাঁধ বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে।

আশ্রয় কেন্দ্রের অভাব : মেঘনার অব্যাহত ভয়াবহ ভাঙ্গনে অনেক আশ্রয় কেন্দ্র বিলীন হয়ে গেছে। ফলে এখানে আশ্রয়কেন্দ্রর সংকট দেখা দিয়েছে। চর কালকিনি, চরমার্টিন, চর লরেন্স, চর ফলকনসহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে আশ্রয় কেন্দ্রের অভাবে ঘুর্ণিঝড়ের সময় হাজারো মানুষকে বিপাকে পড়তে হয়।

ঝুঁকিপূর্ণ সড়ক : তোরাবগঞ্জ-মতিরহাট ৮ কিলোমিটার সড়ক, ইসলামগঞ্জ থেকে নাছিরগঞ্জ দীর্ঘ ৯ কিলোমিটার সড়ক, ৪নং চরমার্টিনের দক্ষিণ মার্টিন-থেকে উত্তর মাটিন সড়কগুলোর বেহাল দশা। প্রতিনিয়ত মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয় হাজারো মানুষকে।

শিক্ষা বঞ্চিত: উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভাবে হাজারো পরিবারের শিশু শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত। মধ্যমার্টিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভাবে দেড় শতাধিক পরিবারের শিশু শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত। নতুন ভবনের অভাবে বিভিন্ন গ্রামে ঝরাজীর্ণ ভবনে ও টিনের ঘরে মাটিতে পাটি বিছিয়ে পাঠদান করছে শিক্ষার্থীরা।

বিধ্বস্ত সেতু: চর কালকিনি জনতা বাজার সংলগ্ন একটি এবং মধ্যমার্টিন বলিপোলমুখী একটি কাঠের পুল বিধ্বস্ত অবস্থায় রয়েছে। যা মেরারমত অত্যন্ত জরুরী। এছাড়াও বিভিন্ন গ্রামে দেখা যায় বাঁশের সাঁকো; এগুলো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। বিভিন্ন গ্রামের শিশু শিক্ষার্থী হাজারো গ্রামবাসী এ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে হয়।

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.