আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে মুখর তুরাগ তীর

শেয়ার

পল্লী নিউজ ডেস্ক:

বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে মুসল্লিদের স্রোত এখন তুরাগমুখী। সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় ও শেষ পর্বের আখেরি মোনাজাত। এতে অংশ নিতে লাখো মানুষ জড়ো হয়েছেন ইজতেমা ময়দানে।

মোনাজাতের আগে সকাল সাড়ে আটটা থেকে শুরু হয়েছে হেদায়তি বয়ান। তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি দিল্লীর হযরত মাওলানা সা’দ আহমেদ উর্দুতে বয়ান দিচ্ছেন। তার বয়ান অনুবাদ করে শোনাচ্ছেন বাংলাদেশের মাওলানা ওমর ফারুক। বয়ান শেষে মাওলানা সা’দ আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন। প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতও পরিচালনা করেছিলেন তিনি। বাংলাদেশের লাখো লাখো মুসল্লি ছাড়াও বিশ্বের ৯৫ দেশের কয়েক হাজার মুসল্লি আখেরি মোনাজাতে অংশ নিচ্ছেন।

৫২তম বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে গতকাল শনিবারই ইজতেমা ময়দান কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়। আজ সকাল আটটার মধ্যেই টঙ্গী শহর, ইজতেমাস্থল এবং এর আশপাশ এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। যত দূর চোখ যায় শুধু মানুষ আর মানুষ। মোনাজাতে শরিক হতে পুরুষের পাশাপাশি বিপুলসংখ্যক নারী ও শিশুর টঙ্গী, ঢাকার উত্তরা ও এর আশপাশের এলাকার বিভিন্ন অলিগলিতে অবস্থান নিয়েছেন। মূল প্যান্ডেলে জায়গা না পেয়ে নিজ উদ্যোগেই তারা প্যান্ডেলের বাইরে পলিথিন শিট ও কাপড়ের শামিয়ানা টানিয়ে ইজতেমায় শরিক হয়েছেন। অনেকে তাঁদের আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে উঠেছেন। লাখো মুসল্লির পদভারে মুখর হয়ে উঠেছে টঙ্গীর তুরাগতীর। মোনাজাত শেষ না হওয়া পর্যন্ত ভিড় অব্যাহত থাকবে। ইজতেমার শেষ দফায় ঢাকাসহ (একাংশ) দেশের ১৭টি জেলার মুসল্লিরা ২৬ খিত্তায় অবস্থান নিয়েছেন।

মোনাজাত উপলক্ষে মুসল্লিদের সুবিধার্থে শনিবার মধ্যরাত থেকে ওই এলাকায় যানবাহন চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে পুলিশ। রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এ বিধিনিষেধ বলবত থাকবে। এবারের বিশ্ব এজতেমা নজীরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ১২ হাজার র‌্যাব ও পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি রয়েছে সাদা পোশাকে প্রায় ৩ হাজার গোয়েন্দা সদস্য। আকাশ ও নৌপথে রয়েছে র‌্যাবের সতর্ক নজরদারি।

 

No widgets found. Go to Widget page and add the widget in Offcanvas Sidebar Widget Area.