পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের জন্য মেয়র পদপ্রার্থীর নাম সুপারিশের জন্য তৃণমূলে ভোটাভুটির শর্ত শিথিল করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। দ্বন্দ্ব-কোন্দল এড়িয়ে দলীয় ঐক্য ও সংহতি রক্ষার জন্য এই কৌশল নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। দলের হাইকমান্ডের এই সিদ্ধান্ত জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আসছে ফেব্রুয়ারির মধ্যে পর্যায়ক্রমে প্রায় ২০০ পৌরসভার নির্বাচন হবে। এসব নির্বাচনে মেয়র পদে কয়েক হাজার নেতাকর্মী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন। এর মধ্যে নির্বাচন কমিশন তিন দফায় ৯১টি পৌরসভার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হবে।

আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘স্থানীয় পর্যায়ে গ্রুপিং এড়িয়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রাখা অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে। এ জন্য তৃণমূলে ভোটাভুটি না করে পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে ইচ্ছুক ত্যাগী, সৎ, যোগ্য ও পরীক্ষিত সব নেতাকর্মীর নাম জেলা কমিটির মাধ্যমে কেন্দ্রে পাঠানোর জন্য আমি বলেছি।’ তিনি বলেন, অতীতে দেখা গেছে অনেক যোগ্য, ত্যাগী এবং দলের পরীক্ষিত নেতাকর্মী ভোটাভুটিতে গিয়ে পরাজিত হয়েছেন। তৃণমূলের সুপারিশের তালিকায় তাঁদের নাম আসেনি। আবার অনেক জায়গা থেকে ভোটাভুটির মাধ্যমে একজন প্রার্থীর নাম সুপারিশ করে পাঠানোর দৃষ্টান্ত রয়েছে।

এই সিদ্ধান্ত দলের হাইকমান্ডের কি না জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের সর্বস্তরে নেতাকর্মীর মধ্যে ঐক্যের ওপর বরাবরই গুরুত্বারোপ করে আসছেন। আমরা সংঘাত এড়াতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

গত ২৮ নভেম্বর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের একটি চিঠি দেন। ওই চিঠিতে তিনি গত ২২ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিলের প্রসঙ্গ টেনে ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে মেয়র পদে দলের মনোনয়ন পেতে ইচ্ছুক প্রার্থীদের নামের তালিকা পাঠানোর নির্দেশ দেন।

ওই চিঠির এক অংশে ওবায়দুল কাদের উল্লেখ করেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গঠনতান্ত্রিক নিয়ম-নীতি এবং তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী মনোনয়নপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করা একটি সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মাননীয় সভাপতি বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা এমপির নির্দেশক্রমে আগামী ৫ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে দেশের মেয়াদোত্তীর্ণ সব পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নের জন্য দলীয় প্রার্থীদের তালিকাসংবলিত যথাযথ রেজল্যুশন কেন্দ্রীয় দপ্তরে জমা প্রদানের নির্দেশ প্রদান করা হচ্ছে।’

জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল পৌর শাখা আওয়ামী লীগ দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেনের নির্দেশনা অনুযায়ী ভোটাভুটিতে না গিয়ে গত ৩ ডিসেম্বর এক সভা আহ্বান করে। তাঁরা ওই সভায় আগ্রহী সাত প্রার্থীর নামে রেজল্যুশন করে উপজেলা ও জেলা কমিটির অনুমোদন নিয়ে তা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের কাছে পাঠিয়েছেন। কেন্দ্রে পাঠানো নাচোল পৌর আওয়ামী লীগের চিঠিতে ২৮ নভেম্বর দলের সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরিত চিঠির প্রসঙ্গ উল্লেখ করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রার্থীর নাম সুপারিশ করতে সব সময় তৃণমূলে ভোটের প্রয়োজন হয় না। মতামতের ভিত্তিতে রেজল্যুশন করেও প্রার্থীর নাম পাঠানো যায়।’

সুত্র: কালেরকন্ঠ

Print Friendly, PDF & Email

রিপ্লাই দিন:

আপনার কমেন্ট দিন
দয়া করে নাম লিখুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.