শুক্রবার, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ ,৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় অনুমোদিত, রেজি:নং ৭৮

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়

Array

টেস্টের প্রতিটা বাঁকে মজা, উত্তেজনা আর নাটক। ঢাকা টেস্ট তেমনই এক অনন্য ম্যাচ, যারা দেখেছেন তারা ভাগ্যবান। গত চারদিনে কত কীইনা ঘটেছে। কখনও বাংলাদেশ এগিয়ে থেকেছে, কখনওবা অস্ট্রেলিয়া। কখনও মনে হয়েছে না, এ ম্যাচ জিততে পারবে না টাইগররা।

তবে সব উত্তেজনা আর অনশ্চিয়তা পাশ কেটে অবশেষে মনে রাখার মতো জয় তুলে নিল বাংলাদেশ। যে জয়ে সাকিব মহানায়ক। ব্যাট হাতে ৮৪ রানের লড়াকু ইনিংস, এরপর পাঁচ উইকেট। কঠিন পরিস্থিতি ফের ত্রাণকর্তা। দেখালেন স্পিন জাদু। আর সেই জাদুতে অজি ব্যাটিং ধূলিস্মাৎ, এবারও পাঁচ উইকেট। সঙ্গে আলো ছড়ালেন তাইজুল, মিরাজরাও। আর তাতেই অস্ট্রেলিয়াকে ২০ রানে হারিয়ে আরেকবার চমক দেখালো টাইগাররা।

২০০৬ সালে ফতুল্লায় জয়ের সুযোগ আসলেও শেষমেশ হারতে হয়েছিল টাইগারদের। ১১ বছর পর স্পিনারদের কৃতিত্বে সেই আফাসোস ঘোঁচালো বাংলাদেশ। পাঁচ টেস্টে অজিদের বিপক্ষে এটাই প্রথম জয় বাংলদেশের। গতবছর অক্টোবর ঢাকাতে ইংল্যান্ড হারিয়েছিল মুশফিকরা। ওটাই ছিল কোনো বড় দলের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জয়।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ করেছিল ২৬০ রান। জবাবে অজিদের সংগ্রহ ছিল ২১৭। প্রথম ইনিংসে ৪৩ রানে লিড নেয় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ ২২১ রানে অলআউট হলে অস্ট্রেলিয়ার সামনে টার্গেট দাঁড়ায় ২৬৫ রান। এই উইকেটে ২৬৫ রান ছোট টার্গেট ছিল না। কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে না পারায় একটা সময় মিরপুরে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

বুধবার তৃতীয় দিন শেষে দুই উইকেট হারিয়ে ১০৯ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশকে ভয় ধরিয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া। ডেভিড ওয়ার্নার ৭৫ ও স্টিভেন স্মিথ ২৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন। আজ চুতুর্থ দিনে অজিদের দরকার ছিল ১৫৬ রান। আর বাংলাদেশের চাওয়া ৮ উইকেট। ম্যাচের পাল্লা অজিদের দিকে ঝুকে ছিল অনেকটা- এটাই বলেছেন বেশিরভাগ ক্রিকেট পণ্ডিত।

তবে আত্মবিশ্বাস ছিল টাইগারদের। আগের দিন তামিম সংবাদ সম্মেলনে সেই আত্মবিশ্বাসের কথা জানিয়েছিলেন। বলেছিলেন, বুধবার প্রথম দিকে ওয়ার্নার ও স্মিথকে বিদায় করতে পারলে একটা কিছু হবে।

তবে ওয়ার্নার-স্মিথ জুটি ভাঙতে সময় লাগছিল। মনে হচ্ছিলো, না হবে না। তখনই জ্বলে ওঠেন সাকিব। জোড়া আঘাত। প্রথমে ১১২ রানে ফেরান ওয়ার্নারকে। কিন্তু এরপরও শঙ্কায় ছিল বাংলাদেশ। কারণ স্মিথ ছিলেন অক্ষত। তবে বেশি সময় অজি অধিনায়ককে উইকেটে থাকতে দেননি সাকিব। ৩৭ রানে স্মিথকে ফিরিয়ে দলকে ম্যাচে ফেরান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব।

কিছুটা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছিলেন হ্যান্ডসকম ও ম্যাক্সওয়েল। এ জুটিকেও দাঁড়াতে দেননি তাইজুল আর সাকিব। প্রথমে ১৫ রানে হ্যান্ডসকমকে ফেরান তাইজুল। এরপর ১৪ রানে সাকিবের বলে ম্যাক্সওয়েল ফিরলে জয় সময়ের ব্যাপার দাঁড়ায়।

৭ উইকেটে ১৯৮ রান নিয়ে স্বস্তির লাঞ্চে যায় টাইগাররা। তখন অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ৬৭ রান। আর বাংলাদেশের দরকার ৩ উইকেট। লাঞ্চের পরপরই আঘাত হানেন সাকিব। ওয়াডকে ৪ রানে বিদায় করেন সাকিব। এ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসেও ৫ উইকেটে নেওয়ার কৃতিত্ব দেখান সাকিব।

তবে শেষদিকে নাথান লায়ন-কামিন্স জুটি জয়কে বিলম্বিত করে রেখেছিলেন। কিছুটা চিন্তায়ও ফেলেছিলেন। কারণ রান তো খুব বেশি না। লায়নকে ১৪ রানে আউট করে দারুণ স্বস্তি আনেন মিরাজ। তবে এরপরও কামিন্স সমানে লড়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু রানে তাইজুলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরলে ২৪৪ রানে অলআউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় ২০ রানে।

৮৫ রানে ৫ উইকেট নেন সাকিব। ৬০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন তাইজুল। দুই উইকেট নেন মিরাজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ২৬০ (৭৮.৫ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৭১, সৌম্য সরকার ৮, ইমরুল কায়েস ০, সাব্বির রহমান ০, সাকিব আল হাসান ৮৪, মুশফিকুর রহিম ১৮, নাসির হোসেন ২৩, মেহেদী হাসান মিরাজ ১৮, তাইজুল ইসলাম ৪, শফিউল ইসলাম ১৩, মোস্তাফিজুর রহমান ০*; জস হ্যাজলেউড ০/৩৯, প্যাট কামিন্স ৩/৬৩, নাথান লায়ন ৩/৭৯, অ্যাশটন আগার ৩/৪৬, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ১/১৫)।

অস্ট্রেলিয়া প্রথম ইনিংস: ২১৭ (৭৪.৫ ওভার)

(ডেভিড ওয়ার্নার ৮, ম্যাট রেনশ ৪৫, উসমান খাজা ১, নাথান লায়ন ০, স্টিভেন স্মিথ ৮, পিটার হ্যান্ডসকম্ব ৩৩, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ২৩, ম্যাথু ওয়েড ৫, অ্যাশটন আগার ৪১, প্যাট কামিন্স ২৫, জস হ্যাজলেউড ৫; শফিউল ইসলাম ০/২১, মেহেদী হাসান মিরাজ ৩/৬২, সাকিব আল হাসান ৫/৬৮, তাইজুল ইসলাম ১/৩২, মোস্তাফিজুর রহমান ০/১৩, নাসির হোসেন ০/৩)।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ২২১ (৭৯.৩ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৭৮, সৌম্য সরকার ১৫, তাইজুল ইসলাম ৪, ইমরুল কায়েস ২, মুশফিকুর রহিম ৪১, সাকিব আল হাসান ৫, সাব্বির রহমান ২২, নাসির হোসেন ০, মেহেদী হাসান মিরাজ ২৬, শফিউল ইসলাম ৯, মোস্তাফিজুর রহমান ০*; জস হ্যাজলেউড ০/৩, প্যাট কামিন্স ০/৩৮, নাথান লায়ন ৬/৮২, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ০/২৪, অ্যাশটন আগার ২/৫৫, উসমান খাজা ০/১)।

অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংস: ২৪৪ (৭৫.৫ওভার)

(ডেভিড ওয়ার্নার ১১২, ম্যাট রেনশ ৫, উসমান খাজা ১, স্টিভেন স্মিথ ৩৭, হ্যান্ডসকম ১৫, ম্যাক্সওয়ের ১৪,  লায়ন ১২,কামিন্স ; মেহেদী হাসান মিরাজ ২/৮০, নাসির হোসেন ০/২, সাকিব আল হাসান ৫/৮৫, তাইজুল ইসলাম ৩/৬০, মোস্তাফিজুর রহমান ০/৮)।

ফল: বাংলাদেশ ২০ রানে জয়ী

সর্বশেষ

কমলনগরে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবস উদযাপন

নিজস্ব প্রতিনিধি: নির্ভুল জন্ম নিবন্ধন করব, শুদ্ধ তথ্যভান্ডার গড়ব’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে লক্ষ্মীপুর কমলনগরে জাতীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবস-২০২২ উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা...

আমরা চাই সব দল নির্বাচনে আসুক: প্রধানমন্ত্রী

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দল অংশগ্রহণ করবে বলে প্রত্যাশা করেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী...

আন্তর্জাতিক সেমিনার শেষে দেশে ফিরেছেন ডাঃ এম মোকতার হোসেন

মো. বদিউজ্জামান (তুহিন), নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ক্লিনিক্যাল কেমিস্ট্রি ও ল্যাবরেটরি মেডিসিনের আমন্ত্রণে আন্তর্জাতিক...

আশ্রয়ণের অধিকার শেখ হাসিনার উপহার

মো. বদিউজ্জামান ( তুহিন), নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের ৩ নং জিরতলী ইউনিয়নে ভূমিহীন ও গৃহহীন...

ইলিশের প্রজনন মৌসুম, মেঘনায় ২২ দিন ইলিশ শিকার বন্ধ

রুবেল চক্রবর্তী- ৭ অক্টোবর থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন মেঘনা নদীতে মাছ ধরার উপর...

চরভদ্রাসনে জাতীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবস পালিত

চরভদ্রাসন(ফরিদপুর) প্রতিনিধিঃ নির্ভুল জন্ম মৃত্যু নিবন্ধন করব শুদ্ধ তথ্যভান্ডার গড়ব এই স্লোগানকে সামনে রেখে ফরিদপুর...